Headlines
Loading...
প্রসূতি মৃত্যুর হার কমাতে বর্ধমান মেডিকেলে প্রশাসনিক বৈঠক

প্রসূতি মৃত্যুর হার কমাতে বর্ধমান মেডিকেলে প্রশাসনিক বৈঠক


ফোকাস বেঙ্গল ডেস্ক,বর্ধমান: গত মার্চ মাসেই ১০জন প্রসূতি মারা গেছেন বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। গত জানুয়ারি মাসে এই সংখ্যাই ছিল ৪জন ও ফ্রেব্রুয়ারি মাসে ছিল ৩জন। স্বাভাবিকভাবেই মাতৃত্বকালীন প্রসবের সময় ও পরে প্রসূতি মৃত্যুর সংখ্যা হটাৎ বেড়ে যাওয়ায় উদ্বিগ্ন জেলা প্রশাসন। আর মাতৃত্বকালীন প্রসূতি মৃত্যুর হার যাতে কমানো যায় সেব্যাপারে বৃহস্পতিবার জেলাশাসক প্রিয়াংকা সিংলার উপস্থিতিতে একটি উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক আয়োজিত হয় বর্ধমান মেডিকেল কলেজে। উপস্থিত ছিলেন জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক, হাসপাতাল সুপার, মেডিকেল কলেজের প্রিন্সিপ্যাল সহ কালনা ও কাটোয়া হাসপাতালের সুপারেরা।


জেলাশাসক বলেন, গত বছরের জানুয়ারি মাস থেকে ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মাতৃত্বকালীন প্রসবের জন্য আসা ৫৭ জন প্রসূতি বিভিন্ন কারণে মারা গেছেন। চলতি বছরের প্রথম তিন মাসে মারা গেছেন ১৭জন। তারমধ্যে মার্চ মাসে ১০জন প্রসূতির মৃত্যু হয়েছে। আর মৃত্যুর এই হার দ্রুত কমানোর জন্যই এদিন আধিকারিকদের নিয়ে বৈঠক করা হয়েছে। এদিন বর্ধমান মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের প্রসূতি বিভাগের সার্বিক পরিকাঠামো খতিয়ে দেখা হয়েছে। 


মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক প্রণব রায় বলেন, প্রসবকালীন মৃত্যুর হার বছরে গড়ে তিন থেকে চার জনের মধ্যে থাকাটা স্বাভাবিক। কিন্তু গত মাসে এই সংখ্যা অনেকটাই বেড়ে গেছে। তিনি বলেন, এর মূল কারণ পর্যবেক্ষণ করে দেখা গেছে জেলার কালনা, কাটোয়া হাসপাতাল ও অন্যান্য ব্লক স্বাস্থ্য কেন্দ্র থেকে অনেক প্রসূতি কে সংকটজনক অবস্থায় বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। অনেক ক্ষেত্রেই এই ধরনের প্রসূতির অবস্থার অবনতি হওয়ায় মৃত্যু ঘটে। আমরা এই বিষয় নিয়েও এদিন আলোচনা করেছি। যাতে জেলার মহকুমা হাসপাতাল গুলোর এবং গ্রামীণ স্বাস্থ্য কেন্দ্র গুলোর পরিকাঠামো উন্নয়ন করা যায় তারজন্য স্বাস্থ্য ভবনে জানানো হবে।


(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});