Headlines
Loading...
বর্ধমানে বামেদের আইন অমান্য কর্মসূচি, একের পর এক ব্যারিকেড ভেঙে দিল বিক্ষোভকারীরা

বর্ধমানে বামেদের আইন অমান্য কর্মসূচি, একের পর এক ব্যারিকেড ভেঙে দিল বিক্ষোভকারীরা


ফোকাস বেঙ্গল ডেস্ক,বর্ধমান: বামেদের আইন অমান্য কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে মঙ্গলবার তুমুল উত্তেজনা ছড়াল বর্ধমান শহরের কার্জন গেট চত্বরে। কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারের বিভিন্ন জনবিরোধী নীতির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে এবং বীরভূমের রামপুরহাটে গণহত্যার প্রতিবাদে এদিন পূর্ব বর্ধমান জেলার বাম গণ সংগঠনের পক্ষ থেকে জেলাশাসকের অফিসে বিক্ষোভ দেখানোর কর্মসূচি নিয়েছিল বাম নেতৃত্ব। 


এই উপলক্ষ্যে এদিন সকাল থেকেই কার্জন গেট চত্বর থেকে জেলাশাসকের অফিসে যাবার রাস্তায় ধাপে ধাপে ব্যারিকেড লাগিয়ে বিক্ষোভকারীদের আটকানোর যাবতীয় বন্দোবস্ত করে বর্ধমান জেলা পুলিশ। নামানো হয় র‍্যা্ফ। নিয়ে আসা হয় জল কামান, কাদানে গ্যাস। এরপরেও শতাধিক বাম নেতা কর্মীদের আটকাতে কার্যত ব্যর্থ হয় পুলিশ। প্রবল বিক্ষোভে বাম কর্মীরা ভেঙে ফেলে একের পর এক ব্যারিকেড।


যদিও তিনটে ব্যারিকেড ভাঙার পর বিক্ষোভরত একাধিক নেতৃত্বের চেষ্টায় শেষ ব্যারিকেড ভাঙার আগেই উত্তেজিত কর্মীদের থামানো যায়। এরপর পুলিশের পক্ষ থেকে ঘোষণা করা হয় আইন ভঙ্গ করার জন্য বিক্ষোভকারীদের গ্রেপ্তার করা হল। পুলিশের জাল ভ্যানে চাপিয়ে বেশ কয়েকজন বাম বিক্ষোভকারী কে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে ছেড়েও দেওয়া হয়।


 সিপিআইএম এর রাজ্য কমিটির সদস্য অমল হালদার বলেন, "রাজ্য জুড়ে আইন শৃঙ্খলা ভেঙে পড়েছে। তার জ্বলন্ত উদাহরণ রামপুরহাটে গণহত্যা কান্ড। অবিলম্বে দোষীদের শাস্তির দাবি জানাচ্ছি আমরা। আনিস হত্যা কান্ডের এখনও বিচার পাওয়া গেল না। নির্বাচনের ফল ঘোষণার দিন বর্ধমান শহরে এক নাবালিকা শাসকদলের এক নেতার প্ররোচনায় আত্মঘাতী হল। অভিযুক্তদের এখনও পুলিশ খুঁজে পাচ্ছে না। আইন শৃঙ্খলা বলে এই রাজ্যে কিছুই নেই। আবার অন্যদিকে কেন্দ্র সরকার সাধারন মানুষকে রাস্তায় বসিয়ে ছাড়ছে। পেট্রোল, ডিজেল থেকে রান্নার গ্যাসের দাম প্রতিদিনই হু হু করে বাড়িয়েই চলেছে। লাগাম ছাড়া মূল্য বৃদ্ধির জেরে দিনযাপন করতে নাজেহাল অবস্থা সাধারণ মানুষের।  আর তাই বাধ্য হয়ে বাম সংগঠন গুলোকে রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ জানাতে হচ্ছে।" 


অমল হালদার বলেন, আগামী ২৮ ও ২৯মার্চ কেন্দ্র ও রাজ্যের বিভিন্ন জনবিরোধী নীতির প্রতিবাদে ১২দফা দাবি কে সামনে রেখে সারা ভারত বন্ধের ডাক দিয়েছে বিভিন্ন শ্রমিক,কৃষক সংগঠন। এই বন্ধের সমর্থন করছে একাধিক বাম শ্রমিক সংগঠন। আগামী কয়েকদিন এই বন্ধের সমর্থনে লাগাতার কর্মসূচি গ্রহণ করেছে জেলা বাম নেতৃত্ব।
(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});