Headlines
Loading...
পূর্ব বর্ধমানে করোনার প্রকোপ আর পুলিশি তৎপরতায় কমে গেল অপরাধের সংখ্যা

পূর্ব বর্ধমানে করোনার প্রকোপ আর পুলিশি তৎপরতায় কমে গেল অপরাধের সংখ্যা


ফোকাস বেঙ্গল ডেস্ক,পূর্ব বর্ধমান: একদিকে চূড়ান্ত করোনার তৃতীয় ঢেউ, অন্যদিকে জেলা পুলিশের নাছোড় প্রচেষ্টা - দুইয়ের জোড়া ফলায় পূর্ব বর্ধমানে মাস খানেক আগেও পরপর ঘটতে থাকা বিভিন্ন অপরাধের সংখ্যা একলাফে প্রায় অনেকটাই কমে গেল। যদিও জেলা পুলিশের এক আধিকারিক সাফ জানিয়েছেন, অপরাধীদের নিকেশ করতে জেলার সব থানার পুলিশ ২৪ঘন্টা প্রতিদিন কাজ করে চলেছেন। পাশপাশি বেশ কিছু অপরাধের ঘটনার তদন্তও জোর কদমে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।


 জেলা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, সম্প্রতি গোটা জেলায় বিশেষত, ফাঁকা বাড়িতে চুরির হিড়িক পড়ে যায়। কার্যত তাঁরাও চাপে পড়ে যান অপরাধীদের চিহ্নিত করতে। পুলিশের পক্ষ থেকে জারি করা হয় নয়া নির্দেশিকাও। পাশাপাশি লাগাতার অভিযানে গোটা জেলায় বেশ কয়েকটি গ্যাংকে গ্রেপ্তার করা হয়। জাতীয় সড়ক থেকে বিভিন্ন জায়গায় ডাকাতির উদ্দেশ্যে জড়ো হওয়া একাধিক দুষ্কৃতীদের গ্রেপ্তার করে পুলিশ। আবার জেলার বিভিন্ন থানা এলাকা থেকে আগ্নেয়াস্ত্র ও বোমা সহ একাধিক দুস্কৃতিকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এছাড়াও একাধিক অপরাধের সঙ্গে যুক্ত দুষ্কৃতীদের গ্রেপ্তার করা হয়।


আর এই ধরণের অপরাধীদের গ্রেপ্তার করার পরই অপরাধের ঘটনায় অনেকটাই রাশ টানা গেছে বলে জেলা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে। এরই মধ্যে ইংরেজি বছরের শুরু থেকেই করোনার তৃতীয় ঢেউ আছড়ে পড়ে গোটা জেলা জুড়েই। পুলিশও কার্যত সাধারণ মানুষকে সতর্ক সচেতন করতে রাস্তায় নেমে পড়ে। জেলার সদর শহর বর্ধমানে করোনা পরিস্থিতি ধাপে ধাপে বেলাগাম হতে শুরু করায় জেলা পুলিশের কর্তাদের দায়িত্ব আরো বাড়ে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে শহরের রাস্তায় নামাতে হয় রিজার্ভ সিভিক ভলেনটিয়ার্স ফোর্স। 




এই পরিস্থিতিতে সাধারণ মানুষও অনেকটাই সচেতন হয়েছেন। খুব প্রয়োজন ছাড়া বাড়ি থেকে কেউ বেরও হচ্ছেন না। ফলে বাড়ি ফাঁকা করে কেউ কোথাও যাচ্ছেন না বলেই বিভিন্ন মহল থেকে জানা গেছে। স্বাভাবিকভাবেই অপরাধও কমছে। জেলা পুলিশের এক আধিকারিক জানিয়েছেন, প্রথম দিকে অপরাধের ট্রেণ্ড বুঝতে তাঁদের একটু সময় লেগেছিল ঠিকই, কিন্তু তারপরই তাঁরা অপরাধীদের গতিবিধি বুঝে ফেলে লাগাতার চেষ্টা চালিয়েছেন আর তাতেই মিলেছে সাফল্য।




0 Comments: