Headlines
Loading...
খণ্ডঘোষে জমিতে বিষক্রিয়ায় একাধিক ছাগলের মৃত্যু, এলাকায় চাঞ্চল্য

খণ্ডঘোষে জমিতে বিষক্রিয়ায় একাধিক ছাগলের মৃত্যু, এলাকায় চাঞ্চল্য


ফোকাস বেঙ্গল ডেস্ক,খণ্ডঘোষ: জমির ফসল খেয়ে নেওয়ার কারণে প্রায় ১২-১৪টি ছাগলকে বিষ খাইয়ে মেরে ফেলার অভিযোগ উঠেছে পূর্ব বর্ধমানের খণ্ডঘোষ থানার শাকারি ১পঞ্চায়েতের কামালপুর খাঁ পাড়ার বাসিন্দা সিপুজন মাহাতো নামে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে। অমানবিক এই ঘটনায় ব্যাপক আলোড়ন ছড়িয়েছে এলাকায়। যদিও মৃত ছাগলগুলির মালিকদের পক্ষ থেকে খণ্ডঘোষ থানায় এখনো কোন অভিযোগ জানানো না হলেও স্থানীয় শাসকদলের নেতৃত্বের কাছে এব্যাপারে হস্তক্ষেপ করার আবেদন জানিয়েছেন তাঁরা। 

শাকারি ১পঞ্চায়েতের অঞ্চল প্রধান শিউলি খাঁ এই ঘটনার কথা স্বীকার করে জানিয়েছেন, খুব শীঘ্রই অভিযুক্তের সঙ্গে কথা বলে এই ধরণের আচরণের কৈফিয়ত তলব করা হবে। প্রয়োজনে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করাও হতে পারে। অন্যদিকে খণ্ডঘোষ ব্লক সভাপতি অপার্থিব ইসলাম এই বিষয়ে জানিয়েছেন, আগাম সতর্ক না করে যদি চাষের জমিতে বিষ দেওয়ার কাজ কেউ করে থাকেন এবং তার জন্য যদি কোন গবাদি পশু মারা গিয়ে থাকে তাহলে আইনত তাঁর সাজা পাওয়া উচিত। তিনি জানিয়েছেন, এবিষয়ে তিনি খোঁজখবর নেবেন।

কামালপুর সাহা পাড়ার বাসিন্দা জয়ন্ত সাহা জানিয়েছেন, খাঁ পাড়ার বাসিন্দা সিপুজন মাহাতো নামে এক ব্যক্তি দামোদরের চরে ফসল চাষ করেছিল। ফাঁকা জায়গায় স্বাভাবিকভাবে গ্রামের গবাদি পশুর ঘুরে বেড়ায়। তিনি জানিয়েছেন, সিপুজনের ফসল গবাদি পশুরা খেয়ে নিচ্ছে বলে সে জমিতে বিষ প্রয়োগ করে। আর এর পরই ওই এলাকার একাধিক মানুষের প্রায় ১২ থেকে ১৪ টি ছাগল মারা যায়। 

তিনি জানিয়েছেন, এদের মধ্যে তাঁর নিজের একটি পাঁঠা ছাগল ও একটি হালোয়ান(স্ত্রী) ছাগল রয়েছে। জয়ন্ত সাহা জানিয়েছেন, এই ঘটনার কথা তিনি অঞ্চল প্রধান কে ফোনের মাধ্যমে ইতিমধ্যেই জানিয়েছেন। পাশাপাশি এই ঘটনার বিহিত না হলে তিনি যে আইনি পদক্ষেপ নেবেন সে কথাও উল্লেখ করেছেন। এদিকে একসঙ্গে অবলা এতগুলো ছাগলকে বিষ প্রয়োগ করে মেরে ফেলার ঘটনায় গ্রামের মানুষের মধ্যে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। গ্রামবাসীদের অনেকে জানিয়েছেন, জমিতে বা ফসলে বিষ দিলে সেই এলাকায় আগে থেকে সতর্ক করে দিতে হয়। এমনকি সেই জমিতে লাল কাপড় লাগিয়ে রাখার ব্যবস্থা করতে হয়। কিন্তু সিপুজন মাহাতো তেমন কিছুই না করে বিষ প্রয়োগ করে রীতিমত অপরাধ করেছেন।

0 Comments: