Headlines
Loading...
শুভেচ্ছা কার্ড আর সিতাভোগ পাঠিয়ে বর্ধমান দক্ষিণের বিধায়কের অভিনব বিজয়া পালন

শুভেচ্ছা কার্ড আর সিতাভোগ পাঠিয়ে বর্ধমান দক্ষিণের বিধায়কের অভিনব বিজয়া পালন


ফোকাস বেঙ্গল ডেস্ক,বর্ধমান: ভোটের আগে মানুষের দুয়ারে দুয়ারে নানান প্রতিশ্রুতির ডালি নিয়ে পৌঁছে ভোটভিক্ষা করেছিলেন বর্ধমান দক্ষিণের প্রার্থী খোকন দাস। মানুষও দুহাত ভরে ভোট দিয়ে তাঁকে বিধায়ক নির্বাচিত করেছেন। এবার একে একে সেই সমস্ত প্রতিশ্রুতি পূরণ করার লক্ষ্যে মাঠে নেমে পড়লেন বর্ধমান দক্ষিণের বিধায়ক। সম্প্রতি তাঁর বিধানসভা এলাকার কয়েক হাজার প্রবীণ নাগরিক কে সম্বর্ধনা জানিয়েছেন তিনি। এবার ৮ হাজার প্রবীণ নাগরিকের কাছে সরাসরি শুভেচ্ছা কার্ড আর সঙ্গে সিতাভোগ পাঠিয়ে অভিনব কায়দায় বিজয়া পালন করলেন খোকন দাস। বিজয়ার আশীর্বাদ এবং শুভেচ্ছা নেওয়ার এই রীতিতে আপ্লুত বর্ধমান পুর এলাকার ৩৫টি ওয়ার্ডের প্রবীণ মানুষেরা।


খোকন দাস জানিয়েছেন, বর্ধমান পুরসভার ৩৫টি ওয়ার্ড তথা বর্ধমান দক্ষিণ কেন্দ্রের এই ৩৫টি ওয়ার্ডে তিনি ৮ হাজার প্রবীণ নাগরিকের তালিকা তৈরী করেছেন। আর সেই তালিকা ধরে ধরে তাঁরই অনুগামীরা পৌঁছে যাচ্ছেন সেই সমস্ত প্রবীণ নাগরিকদের বাড়ি। প্রত্যেক প্রবীণ নাগরিকের হাতে তুলে দিচ্ছেন বিধায়কের শুভেচ্ছা বার্তার একটি কার্ড এবং ৫০০ গ্রাম করে সীতাভোগের প‌্যাকেট। ইতিমধ্যেই কলকাতা থেকে তৈরী করে আনা হয়েছে এই বিজয়ার বিশেষ শুভেচ্ছা কার্ড। খরচ পড়েছে প্রায় ১১টাকা প্রতি কার্ডের। আর এরসঙ্গে রয়েছে ৫০০ গ্রাম করে সীতাভোগ। সবমিলিয়ে এই বিজয়া জানাতেই খোকনবাবুর খরচ হচ্ছে প্রায় কয়েক লক্ষ টাকা। 


বিধায়ক জানিয়েছেন, এতকাল বর্ধমানের কোনো বিধায়ক বা সাংসদ এই ধরণের উদ্যোগ নেননি। ভোটের সময় তাঁরা ভোট চাইতে গেছেন। কিন্তু তিনি বিধায়ক হবার পর সবসময়ের জন্য বর্ধমানবাসীর জন্য তিনি তৈরী রয়েছেন। তিনি জানিয়েছেন, বর্ধমানের প্রবীণ মানুষদের জন্য কোনো বিধায়কই কোনো কিছু ভাবেননি এতকাল। কিন্তু সম্প্রতি তাঁর নির্বাচন এলাকার প্রবীণ নাগরিকদের তিনি সম্মান জানিয়েছেন। আর এবার তিনি বিজয়ার জন্য প্রত্যেক প্রবীণ মানুষের কাছে তিনি পৌঁছাচ্ছেন তাঁদের আশীর্বাদ নিতে। 



খোকন দাস জানিয়েছেন, সবসময় তিনি পৌঁছাতে পারছেন না কাজের চাপে। তাঁর প্রতিনিধিরা যাচ্ছেন প্রবীণ নাগরিকদের কাছে। আর রাত্রিবেলায় তিনি প্রত্যেক প্রবীণ নাগরিকদের ফোনে ফোন করে তাঁদের কাছ থেকে আশীর্বাদ চাইছেন, প্রণাম জানাচ্ছেন। সুবিধা অসুবিধার কথা শুনছেন। তিনি জানিয়েছেন, তাঁর নির্বাচন এলাকার এই প্রবীণ মানুষেরা তাঁর এই ব্যবহার পেয়ে রীতিমত আপ্লুত এবং অবাকও হচ্ছেন। দুহাত তুলেই তাঁরা আশীর্বাদ জানাচ্ছেন।

0 Comments: