Headlines
Loading...
মাকে খুন করে ঘরের মেঝেতে পুঁতে দিয়েছিল ছোট ছেলে, দুবছর পর ঘটনা প্রকাশ্যে, বর্ধমানে আটক ছোট ছেলে

মাকে খুন করে ঘরের মেঝেতে পুঁতে দিয়েছিল ছোট ছেলে, দুবছর পর ঘটনা প্রকাশ্যে, বর্ধমানে আটক ছোট ছেলে


ফোকাস বেঙ্গল ডেস্ক,পূর্ব বর্ধমান: নৃশংসভাবে নিজের মাকে খুন করে ঘরের মেঝেতেই গর্ত করে পুঁতে দিয়েছিল ছোট ছেলে। আর সেই ঘটনার কথা প্রায় দু বছর পর প্রকাশ্যে আসতেই তীব্র চাঞ্চল্য ছড়াল বর্ধমানের হাটুদেওয়ান পীরতলা এলাকায়। বর্ধমান থানার পুলিশ এই খুনের ঘটনায় ইতিমধ্যেই অভিযুক্ত ছোট ছেলে সহিদুল সেখ (৩২)ওরফে নয়ন কে আটক করেছে। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, আগামীকাল কোর্টের অর্ডার নিয়ে মাটি খুঁড়ে মৃতদেহের নমুনা সংগ্রহ করে ময়না তদন্তে পাঠানো হবে। পাশপাশি গোটা ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। মৃত মহিলার নাম সুকরানা বিবি(৫৬)।


সুকরানা বিবির বড় ছেলে কিসমত আলী জানিয়েছেন, তাঁরা দুই ভাই। ছোট ভাইয়ের নাম সেখ সহিদুল। সে ছোট গাড়ি চালানোর কাজ করে। মায়ের সঙ্গে সে একই বাড়িতে থাকত। তিনি জানিয়েছেন, তাঁদের মা প্রায়ই বাড়ি ছেড়ে মাজার বা ধর্মীয় স্থানে চলে যেতেন বেশ কিছুদিনের জন্য। আবার ফিরে আসতেন। তাঁর অভিযোগ, ২০১৯ সালের ১০জানুয়ারির পর থেকে মা সুকরানা বিবি আর বাড়িতে ফেরেননি। এরপর ওই বছরের ২২ফেব্রুয়ারি বর্ধমান থানায় নিখোঁজ ডাইরি করেন তিনি। 

তিনি জানিয়েছেন, ছোট ভাইয়ের সঙ্গে তার বউ সুকরানা বিবির (শাশুড়ির নাম এবং ছোট বউয়ের নাম একই) প্রায়ই ঝগড়াঝাটি, অশান্তি হতো। এরপর তাদের একটি পুত্র সন্তানেরও জন্ম হয়। কিন্তু ছোট বউ হঠাৎই মাস ছয়েক আগে শশুরবাড়ী ছেড়ে ভাতারের এরুয়ারে বাপের বাড়ি চলে যায়। সোমবার ছোট বউ এবং তার সন্তান কে ফের বাড়িতে ফিরিয়ে আনার জন্য এরুয়ারের বাড়িতে গিয়েছিলেন তিনি এবং তাঁর স্ত্রী মিলি বিবি।


কিসমত আলী জানিয়েছেন, এরপরই ছোট বউ সুকরানা বিবি তাঁদের জানান তিনি আর শশুরবাড়ী ফিরবেন না। কারণ তাঁর স্বামী সহিদুল সেখ নিজে তাঁর মাকে খুন করে বাড়িতেই ঘরের মধ্যে গর্ত করে পুঁতে দিয়েছে। সুকরানা বিবি এও জানিয়েছেন, সহিদুল এই কথা নিজে তাঁকে জানিয়েছিল। এমনকি সহিদুল সেখ তাকেও হুমকি দিয়েছিল যে বেশি বাড়াবাড়ি করলে তারও মায়ের মতো পরিণতি হবে। আর এরপরই সহিদুলের স্ত্রী সুকরানা বিবি কাউকে কিছু না জানিয়েই বাপের বাড়ি চলে যায়। 



ছোট বউয়ের কাছে মায়ের নিখোঁজ হয়ে যাওয়ার রহস্য পরিষ্কার হতেই বড় ছেলে কিসমত আলী বর্ধমানে ফিরে এসে পাড়া প্রতিবেশীদের সঙ্গে কথা বলে বর্ধমান থানায় গোটা ঘটনার বিষয়ে অভিযোগ করেন। আর এরপরই সহিদুল সেখ ওরফে নয়ন কে আটক করে পুলিশ। এদিকে নিজের মাকেই নৃশংসভাবে খুন করে ঘরের মেঝেতে পুঁতে দেওয়ার ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে এলাকাজুড়ে। 


(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});