728x90 AdSpace

Latest News

Monday, 16 August 2021

মেমারিতে ২২ বছর ধরে টোটো চালকের উদ্যোগে স্বাধীনতা দিবস পালন, জেলা জুড়ে নানান অনুষ্ঠান, বিতর্ক


ফোকাস বেঙ্গল ডেস্ক,পূর্ব বর্ধমান: এক টোটো চালকের উদ্যোগে গত ২২ বছর ধরে মেমারিতে স্বাধীনতা দিবস পালন ও বস্ত্রদান কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে ধারাবাহিকভাবে। স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষ্যে ২২ বছর ধরে মেমারিতে বস্ত্রবিতরণ ও বসে আঁকো প্রতিযোগিতা করে আসছেন অমরজিৎ রায়। তিনি পেশায় টোটো চালক। তিনি জানিয়েছেন, বিহারে জন্মগ্রহণ করলেও ছোট বেলাতেই তিনি চলে আসেন মেমারিতে। বিভিন্ন জায়গায় স্বাধীনতা দিবস উদযাপন দেখে তিনি অনুপ্রাণিত হন। নিজস্ব টোটো-রিক্সা চালিয়ে সারা বছর যে আয় হয় সেখান থেকে তিনি স্বাধীনতা দিবসে এই অনুষ্ঠান আয়োজন করে আসছেন। 

রবিবারও যথাযথ মর্যাদায় ৭৫ তম স্বাধীনতা দিবসে মেমারি কৃষ্ণবাজার কলেজ মোড়ে অঙ্কন প্রতিযোগিতা ও বস্ত্র বিতরণ কর্মসূচীর পাশপাশি স্বাধীনতা দিবস উদযাপন করলেন তিনি। অমরজিৎ রায় জানিয়েছেন, ২২ বছর ধরে স্বাধীনতা দিবস পালন করছেন তিনি। ইতিমধ্যেই তাঁর এই কাজে স্থানীয় টোটো চালক রোহিত কুমার সাউ, মেনু শেঠ সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন।


 অন্যদিকে, জুতো পড়ে ভারতের জাতীয় পতাকা তুলে বিতর্কে জড়ালেন মন্তেশ্বরের বিধায়ক তথা রাজ্যের মন্ত্রী সিদ্দিকুল্লা চৌধুরী। ভারতের ৭৫তম স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষ্যে মন্তেশ্বর তৃণমূল কংগ্রেসের উদ্যোগে কুসুমগ্রাম বাসস্ট্যান্ডে পতাকা উত্তোলন কর্মসূচিতে জুতো পরে ভারতের জাতীয় পতাকা তোলেন এলাকার বিধায়ক তথা মন্ত্রী সিদ্দিকুল্লা বাবু। আর তারপরেই শুরু হয়েছে বিতর্ক। শুধু কুসুমগ্রামই নয়, রবিবার মন্তেশ্বর ডক্টর গৌর মোহন রায় কলেজে একই ভাবে জুতো পড়ে জাতীয় পতাকা তোলেন মন্ত্রী সিদ্দিকুল্লা চৌধুরী। 

অপরদিকে, বর্ধমান পুরসভার ৪নং ওয়ার্ডে ৭৫ তম স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে বর্ধমান স্বাস্থ্য শিবির করার জন্য লাগানো ফ্লেক্স ছিঁড়ে দেওয়াকে কেন্দ্র করে চাঞ্চল্য ছড়ালো। অভিযোগ উঠেছে তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের দিকেই। স্বাস্থ‌্য শিবিরের আয়োজক দেবপ্রসাদ গাঙ্গুলী জানিয়েছেন, স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে তিনি একটি স্বাস্থ্য শিবির করবেন বলে ব্যানার দেন। কিন্তু রাতের অন্ধকারে সেই ব্যানার ছিঁড়ে ফেলে দিয়ে সেখানে খেলা দিবসের ব্যানার লাগানো হয়। এই ঘটনা তিনি বর্ধমান থানাতেও জানিয়েছেন।

মেমারিতে ২২ বছর ধরে টোটো চালকের উদ্যোগে স্বাধীনতা দিবস পালন, জেলা জুড়ে নানান অনুষ্ঠান, বিতর্ক
  • Blogger Comments
  • Facebook Comments

0 comments:

Post a Comment

Top