Headlines
Loading...
বর্ধমানে জাতীয় মহিলা কমিশনের সদস্যদের উপস্থিতির মাঝেই বিজেপি নেতাকে মারধরের অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে

বর্ধমানে জাতীয় মহিলা কমিশনের সদস্যদের উপস্থিতির মাঝেই বিজেপি নেতাকে মারধরের অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে


ফোকাস বেঙ্গল ডেস্ক,পূর্ব বর্ধমান: ঘরছাড়াদের ঘরে ফিরতে হলে দিতে হচ্ছে মোটা টাকার জরিমানা, এমনই অভিযোগ বিজেপির। সোমবার সেই অভিযোগ জানাতে কেন্দ্রীয় মহিলা কমিশনের প্রতিনিধি দলের সদস্যা ডঃ আর এল দেশাইয়ের সঙ্গে দেখা করতে এলেন আক্রান্ত বিজেপি কর্মীরা। এদিন বর্ধমান সার্কিট হাউসে জাতীয় মহিলা কমিশনের ৫ সদস্যের প্রতিনিধি দলের সঙ্গে দেখা করেন আক্রান্ত বিজেপি কর্মী এবং তাঁদের পরিবারের সদস্যরা। তাঁদের অভিযোগ, ভোটের ফল ঘোষণারর পর থেকে শাসকদলের অত্যাচারে, সন্ত্রাসে পরিবার পরিজন নিয়ে তাঁরা ঘরছাড়া। বিজেপি করায় তাদের মারধর করা হয়, ঘরবাড়িতে লুটপাট চালানো হয়। তাদের প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া হয় বলেও অভিযোগ। 

এদিন পূর্ব বর্ধমান জেলার বিভিন্নপ্রান্ত থেকে ঘরছাড়া, আক্রান্ত বিজেপি কর্মীরা সার্কিট হাউসে উপস্থিত হন। নদীয়া জেলা থেকেও বেশ কয়েকজন আক্রান্ত বিজেপি কর্মী এদিন এই প্রতিনিধি দলের সাথে দেখা করতে আসেন। এরই মাঝে বীরভূম থেকে বিজেপি নেতা তাপস দাস অভিযোগ করেন, এদিন বর্ধমান সার্কিট হাউসে তাঁরা যখনআসেন তখন পুলিশ তাঁদের আটকায় এবং তাঁদের ঠিকানা ও ফোন নম্বর নিয়ে তাঁদের এলাকায় তা জানিয়ে দিচ্ছে। এর ফলে ফের তাঁরা সমস্যায় পড়ছেন। তাপসবাবু জানিয়েছেন, এব্যাপারে এদিন জাতীয় মহিলা কমিশনের দৃষ্টি আকর্ষণ করার পর মিটিং থেকে উঠে এসে ড. রাজুলবেন এল দেশাই গেটের দায়িত্বে থাকা পুলিশ অফিসারদের সঙ্গে কথা বলেন। সরাসরি তিনি পুলিশ অফিসারদের জানান, যাঁরা আসছেন তাঁরা যাতে কোনো বাধাপ্রাপ্ত না হয় তা দেখার দায়িত্ব পুলিশের।

এদিকে এদিন যখন মহিলা কমিশনের সদস্যরা আক্রান্তদের সঙ্গে কথা বলছেন সেই সময় বর্ধমানের মেমারী ২নং ব্লকের মহেশপুর গ্রামে বিজেপির ১৮নং জেলা পরিষদের মণ্ডল কমিটির সংখ্যালঘু সেলের সাধারণ সম্পাদক বুলবুল মণ্ডলকে ব্যাপক মারধর করার অভিযোগ উঠল তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে। এই ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। মারধরের পর বিজেপি কর্মীরাই তাঁকে উদ্ধার করে পাহাড়হাটী ব্লক প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যান। বিজেপির বর্ধমান পুর্ব জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক বিশ্বজিত পোদ্দার জানিয়েছেন, তাঁরা পুলিশের কাছে অভিযোগের পাশাপাশি মানবাধিকার কমিশনেও নালিশ জানাচ্ছেন। যদিও এই ঘটনার সঙ্গে তৃণমূলের কোনো যোগ নেই বলে সাফ জানিয়েছেন মেমারী ২নং ব্লক তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি মহম্মদ ইসমাইল। তিনি জানিয়েছেন, এই ঘটনা পারিবারিক বিবাদের জের। এর সঙ্গে তৃণমূলের কোনো যোগ নেই। এদিন জাতীয় মহিলা কমিশনের সদস্যা রাজুলবেন এল দেশাই বিস্তারিত কিছুই জানাতে চাননি সাংবাদিকদের। তিনি জানিয়েছেন, এটা গোপনীয় বিষয়। তাঁরা হাইকোর্টে রিপোর্ট জমা দেবেন।

0 Comments: