Headlines
Loading...
ধেয়ে আসছে ইয়াস, মোকাবিলায় তৈরী বর্ধমান জেলা প্রশাসনের সাথে পৌরসভাও, প্রস্তুত একাধিক বেসরকারী সংস্থাও

ধেয়ে আসছে ইয়াস, মোকাবিলায় তৈরী বর্ধমান জেলা প্রশাসনের সাথে পৌরসভাও, প্রস্তুত একাধিক বেসরকারী সংস্থাও


ফোকাস বেঙ্গল ডেস্ক,পূর্ব বর্ধমান: রবিবার দুপুরে আচমকাই বর্ধমান জেলার বিভিন্ন জায়গায় হাল্কা ঝোড়ো হাওয়া আর কয়েক মিনিটের বৃষ্টি রীতিমত চিন্তায় ফেলে দিয়েছে শহরবাসীকে। আরও চিন্তার কারণ হয়েছে এই কয়েক মিনিটের বৃষ্টিতেই বর্ধমান শহরের একাধিক রাস্তায় জল জমে যাওয়ায় নাকাল হলেন শহরবাসীরা। এদিন এই এক পশলা বৃষ্টিতেই শহরের ছোটনীলপুর এলাকার খোল গোডাউন পাড়া, আমবাগান, নতুনকলোনী সহ শহরের বেশ কয়েকটি এলাকায় এই জল জমায় রীতিমত আশংকায় ভুগতে শুরু করেছেন সাধারণ মানুষ। কারণ ইতিমধ্যেই গোটা রাজ্য জুড়ে করোনাকে ছাপিয়ে ঘূর্ণিঝড় ইয়াস এর প্রস্তুতি তুঙ্গে।


 গোটা রাজ্যের সঙ্গে বর্ধমান জেলা জুড়েই ইয়াস নিয়ে পাড়ায় পাড়ায় চলছে সচেতনতামূলক প্রচার। শনিবার থেকেই মাইক নিয়ে এলাকায় এলাকায় সর্বসাধারণকে প্রশাসনের পক্ষ থেকে সচেতন করাও শুরু হয়েছে। জেলার প্রতিটি ব্লকেই ব্লক প্রশাসন, জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। কিভাবে ইয়াস এর ধ্বংসলীলা মোকাবিলা করা সম্ভব, দুর্যোগের সময় কিভাবে ত্রাণের ব্যবস্থা করা হবে প্রভৃতি বিষয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। প্রতিটি ব্লক সহ জেলা স্তরে দুর্যোগ মোকাবিলায় খোলা হয়েছে কন্ট্রোল রুম। 


শনিবার থেকে জেলার ১৬জন বিধায়কের তত্ত্বাবধানে নিজের নিজের বিধায়ক জনসেবা কেন্দ্রগুলিতে সোম ও মঙ্গলবার টানা ৪৮ঘণ্টার জন্য বিধায়কদের উপস্থিত থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কোথাও কোনো সমস্যা দেখা দিলেই দ্রুততার সঙ্গে তার প্রতিবিধান করারও নির্দেশ জারী করা হয়েছে। এদিকে, সরকারী এই প্রস্তুতির পাশাপাশি বেশ কিছু স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনও এগিয়ে এসেছেন। বর্ধমানের পশুপ্রেমী সংস্থা ভয়েস ফর দ্যা ভয়েসলেসের সভাপতি অভিজিত মুখার্জ্জী জানিয়েছেন, তাঁরা একটি উদ্ধারকারী দল তৈরী করেছেন। ইয়াস এর প্রভাবে কোথাও কোনো পশু, পাখির সমস্যা দেখা দিলে দ্রুততার সঙ্গে তাঁরা উদ্ধার করার জন্য তৈরী রয়েছেন। তারা ইতিমধ্যে একটি হেল্প লাইন নম্বর সহ আরো বেশ কয়েকটি নম্বর চালু করেছে। হেল্প লাইন নম্বর- ১৮০০১২০৩৬১১১১ / এছাড়াও ৯৪৩৪০৮৩৬৩৬ / ৭৩৮৪৯৩০২৯০ / ৭০০১৪৬৯৮৬৬ এই নম্বর গুলোতেও যোগাযোগ করা যাবে।


অন্যদিকে, মেমারীর পাল্লারোড পল্লীমঙ্গল সমিতির সম্পাদক সন্দীপন সরকার জানিয়েছেন, তাঁরাও ১৬জনের একটি কুইক রেসপন্স টিম গঠন করেছেন। তাঁদের কাছে খবর এলেই এই টিম দ্রুত উদ্ধারের কাজে হাত লাগাবেন। এদিকে, যশের মোকাবিলায় যখন চারিদিকে যুদ্ধকালীন প্রস্তুতি তুঙ্গে সেই সময় বর্ধমান শহরের কয়েকটি জায়গায় জল জমে যাওয়ায় দুশ্চিন্তা দেখা দিয়েছে, যশের প্রভাবে একটানা দুদিন বৃষ্টি হলে কি হবে তা নিয়ে দেখা দিয়েছে আতংকও। যদিও বর্ধমান পুরসভার এক্সিকিউটিভ অফিসার অমিত গুহ জানিয়েছেন, ভয় বা চিন্তার কোনো কারণ নেই। পুরসভার পক্ষ থেকে সবরকমের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। জলনিকাশী ব্যবস্থা খতিয়ে দেখা হয়েছে। কোথাও কিছু অসুবিধা থাকলে তা দুর করা হবে।


 তিনি জানিয়েছেন, এদিনও ইয়াস এর মোকাবিলা নিয়ে ভিডিও কনফারেন্স হয়েছে রাজ্যের সঙ্গে। বর্ধমান পুরসভা ইয়াস এর মোকাবিলায় পানীয় জলের পর্যাপ্ত ব্যবস্থা রাখছে। তৈরী থাকছে কুইক রেসপন্স টিম। জেসিপি মেশিন, গাছ কাটার যন্ত্র থেকে ফ্লাড সেণ্টার, পানীয় জলের ট্যাংক তৈরী রাখা হয়েছে। মঙ্গলবার থেকে পুরসভার কন্ট্রোল রুমও চালু থাকছে। ফলে নাগরিকদের অহেতুক আতংকিত হবার কিছু নেই বলেই আশ্বস্ত করেছেন অমিত গুহ।


(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});