Headlines
Loading...
বর্ধমানে রাতের অন্ধকারে ওষুধ ব্যবসায়ীকে খুনের চেষ্টা, তীব্র আতংক

বর্ধমানে রাতের অন্ধকারে ওষুধ ব্যবসায়ীকে খুনের চেষ্টা, তীব্র আতংক


ফোকাস বেঙ্গল ডেস্ক,পূর্ব বর্ধমান: বর্ধমান শহরে ফের ব্যবসায়ীর উপর গুলি চালিয়ে ছিনতাইয়ের ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়াল। গুরুতর আহত ওষুধ ব্যবসায়ী লিটন মজুমদার কে চিকিৎসার জন্য বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। যদিও বর্ধমান থানার পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গুলি চালানোর কোনো হদিস পাওয়া যায়নি। তবে ওই ব্যবসায়ীকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করা হয়েছে। তার শরীরে কয়েকটি গভীর ক্ষত দেখতে পাওয়া গেছে। পুলিশ জানিয়েছে, দুষ্কৃতীরা ওই ব্যবসায়ীর কাছে থাকা টাকার ব্যাগ ছিনতাইয়ের উদ্দেশ্যে হামলা চালানোর সময় ছুরি বা ভোজালি জাতীয় অস্ত্র দিয়ে আঘাত করেছে ওই ব্যক্তিকে। গোটা ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে বর্ধমান জেলা পুলিশ। 

বর্ধমান মেডিকেল ডিস্ট্রিবিউটর অ্যাসোসিয়েশন এর পদাধিকারী গঙ্গাধর আগরওয়াল জানিয়েছেন, শুক্রবার রাত প্রায় সাড়ে ৯টা নাগাদ বর্ধমানের অনিতা সিনেমা লেনের কল্যাণী মার্কেটের ওষুধ ব্যবসায়ী লিটন মজুমদার প্রতিদিনের মতোই এদিনও দোকানের কাজ শেষ করে টিকরহাট মালিরবাগান এলকায় নিজের বাড়ি ফিরছিলেন। সেই সময় বাড়ির কাছেই কয়েকজন দুষ্কৃতী তার বাইক ঘিরে ধরে। তার সঙ্গে থাকা একটি টাকা ভর্তি ব্যাগ ছিনতাইয়ের চেষ্টা করে। গঙ্গাধর বাবু জানিয়েছেন, 
দুষ্কৃতীদের বাধা দেওয়ার চেষ্টা করতেই তারা গুলি চালায় বলে অভিযোগ। যদিও তিনি জানিয়েছেন, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ গুলি লাগার বিষয়ে সঠিক করে কিছু জানায়নি। 

স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, ঘটনার সময় এলাকা অন্ধকারাচ্ছন্ন ছিল। চিৎকার চেঁচামেচির আওয়াজ শুনেই অনেকে বেরিয়ে এসে দেখেন রক্তাক্ত অবস্থায় এক ব্যক্তিকে তার বাড়ির লোকজন সামলাচ্ছেন। লিটন মজুমদারের পরিবারের লোকজন জানিয়েছেন, দুষ্কৃতীরা আগে থেকে অনুসরণ করে বাড়ির সামনে এসে টাকার ব্যাগ ছিনতাই করার চেষ্টা করে দুষ্কৃতীরা। বাধা পেয়ে প্রথমে ধারালো অস্ত্র দিয়ে হাতে, পিঠে আঘাত করে দুষ্কৃতীরা। এরপর সম্ভবত গুলি চালিয়ে লিটন মজুমদারের সঙ্গে থাকা ব্যাগ নিয়ে চম্পট দেয় দুষ্কৃতীরা। পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন, দুষ্কৃতীরা সংখ্যায় তিনজন ছিল। এদিকে এই ঘটনায় শহর জুড়ে তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। শনিবার সকালে লিটন মজুমদারের উপর হামলার ঘটনায় বর্ধমান থানায় লিখিত অভিযোগ জানিয়েছে পরিবারের সদস্যরা। বর্ধমান জেলা পুলিশ গোটা ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। 

0 Comments: