Headlines
Loading...
গভীর রাতে বিকট আওয়াজ করে ভেঙে পড়ল বাড়ির ছাদ, লাগলো আগুন, আহত বৃদ্ধা

গভীর রাতে বিকট আওয়াজ করে ভেঙে পড়ল বাড়ির ছাদ, লাগলো আগুন, আহত বৃদ্ধা


ফোকাস বেঙ্গল ডেস্ক,ভাতার: গভীর রাতে বিকট আওয়াজ করে ভেঙে পড়ল দোতলা বাড়ির একতলার ছাদ। ঘটনায় গুরুতর জখম হয়েছেন এক বৃদ্ধা। ঘটনাটি ঘটেছে ভাতারের ঊষা গ্রামে। ঘটনার পর বিস্ফোরণের আতঙ্কে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে এলাকায়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন ভাতার থানার ওসি, সি আই, ডিএসপি ক্রাইম। পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। পাশপাশি জখম বৃদ্ধাকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।


পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার রাত প্রায় সাড়ে তিনটা নাগাদ ভাতারের ঊষা গ্রামে একটি দোতলা  বাড়ির একতলার এক অংশের ছাদ বিকট আওয়াজে হুরমুড়িয়ে ভেঙে পড়ে। আর এর পরই আগুন ধরে যায় বাড়িতে। সেই সময় ঘরে ঘুমিয়ে ছিলেন সুমিত্রা কর্মকার(৬৫) নামে এক বৃদ্ধা। আগুনে তার শরীরের বেশ কিছু অংশ পুড়ে যায়। স্থানীয়রা যখন উদ্ধার করে ওই বৃদ্ধাকে তিনি অগ্নিদগ্ধ অবস্থায় বাড়ির মধ্যে ছিলেন। কেন এমন বিকট আওয়াজ হলো, কিভাবেই বা বাড়ির মধ্যে আগুন লাগল সে প্রশ্ন এলাকার মানুষের মধ্যে তৈরি হয়েছে। পাশাপাশি ওই বাড়ির এক তালার ছাদ ভেঙে পড়লেও বাড়ির এজবেস্টারের চাল কিভাবে উড়ে গেল সে নিয়েও জল্পনা শুরু হয়েছে গ্রামে। 

অন্যদিকে পুলিশের দাবি, অত্যাধিক ভারে বাড়িটি ভেঙে পড়েছে। কারণ একতলার ছাদে কোন রড ছিল না।পুলিশের প্রাথমিক অনুমান শর্ট সার্কিটের ফলে আগুন লেগে থাকতে পারে ঘরে। জেলা পুলিশ সুপার ভাস্কর মুখোপাধ্যায় জানিয়েছেন, ঘটনার পর ঘটনাস্থল থেকে বেশ কিছু নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। সেইসব পরীক্ষার জন্য পাঠানো হচ্ছে। ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। এদিকে জানা গেছে, পাশের ঘরেই শুয়ে ছিলেন সুমিত্রা কর্মকারের ছেলে বিপদতারণ কর্মকার ও তার স্ত্রী রাখি কর্মকার এবং তাদের ৫ বছরের একটি মেয়ে। যদিও তাদের কোনো ক্ষতি হয়নি।


গ্রামের এক বাসিন্দা জটায়ূ মাঝি জানান, রাত তখন প্রায় সাড়ে তিনটে, হঠাৎ বিকট আওয়াজে ঘুম ভেঙ্গে যায়। ঘুম থেকে উঠে শুনি আগুন আগুন করে কেউ চিৎকার করছেন। ছুটে গিয়ে দেখেন পাশের বাড়ির বিপদতারণ কর্মকারের মা অগ্নিদগ্ধ হয়ে গেছেন। কিভাবে আগুন লাগলো, বাড়িই বা কিভাবে ভাঙলো, এবং বাড়ীর চাল কিভাবে উড়ে গেল - তিনি কিছুই বুঝতে পারছেন না।
যদিও আচমকা গ্রামে এই ভয়াবহ ঘটনায় তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।

0 Comments: