Headlines
Loading...
 বর্ধমানে বুধবার ফের করোনায় আক্রান্ত ১৭জন, জেলায় ৫০জন, ফের লকডাউনের পক্ষেই শহর তথা জেলাবাসী

বর্ধমানে বুধবার ফের করোনায় আক্রান্ত ১৭জন, জেলায় ৫০জন, ফের লকডাউনের পক্ষেই শহর তথা জেলাবাসী


ফোকাস বেঙ্গল ডেস্ক,পূর্ব বর্ধমান: পূর্ব বর্ধমান জেলায় তথা খোদ বর্ধমান শহরে হু হু করে বাড়ছিল করোনা সংক্রমণ, আর তাতে লাগাম টানতে স্বরাষ্ট্র সচিবের নির্দেশে জেলা প্রশাসন বর্ধমান শহরে টানা সাতদিনের লকডাউন ঘোষণা করেছিল। এরই মাঝে অবশ্য গত বৃহস্পতিবার এবং শনিবার রাজ্য জুড়ে সম্পূর্ণ লকডাউন পালিত হয়েছে। গতকাল বর্ধমান শহরের সাতদিনের লকডাউন পর্ব শেষ হয়ে গেলেও বুধবার অর্থাৎ আজ ছিল রাজ্য জুড়ে সম্পুর্ন লকডাউন। অর্থাৎ করোনার অতি সংক্রমণ রোধে রাজ্য সরকার থেকে জেলা ও পুলিশ প্রশাসন সক্রিয় ভূমিকা নিলেও আজ অর্থাৎ বুধবারের প্রশাসনিক রিপোর্ট সামনে আসার পর শেষমেষ আদৌ তার সুফল কতটা পাওয়া গেল তা নিয়ে ইতিমধ্যেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে।


কারণ বুধবারই নতুন করে বর্ধমান পুর এলাকায় ১৪টি কন্টেনমেন জোন করা হয়েছে। খোদ এদিনের জেলা প্রশাসনের জারি করা রিপোর্ট অনুযায়ী বর্ধমান শহরে করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন মোট ১৭ জন। আর জেলায় এই সংখ্যা ৫০। রিপোর্টে জানানো হয়েছে বুধবার পর্যন্ত জেলায় করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৭২৫ জন। এঁদের মধ্যে ৪৯০ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। এবং এই মুহূর্তে জেলায় সক্রিয় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা মোট ২২১। যদিও নতুন করে কোন করোনা আক্রান্ত রোগীর মৃত্যু ঘটেনি। এখনো পর্যন্ত জেলায় করোনায় মৃতের সংখ্যা ১৪।  কেবলমাত্র আজই বর্ধমান পৌর এলাকায় নতুন করে ১৪ টি কন্টেইনমেন্ট জোন তৈরি হয়েছে। জেলায় এদিন পর্যন্ত মোট কন্টেইমেন্ট জোন রয়েছে ১৬২টি।


আর এরপরই স্বাভাবিকভাবেই রীতিমত চিন্তার ভাঁজ দেখা দিয়েছে প্রশাসনের কপালে। প্রশ্ন উঠতে শুরু করে দিয়েছে লকডাউন করে শেষমেষ ফলাফল কি হল তা নিয়েও। স্বাভাবিকভাবেই লকডাউন আবারও বাড়ানো হবে কিনা তা নিয়েও একপ্রস্থ ভাবনা চিন্তা শুরু হয়ে গেছে প্রশাসনিক স্তরে বলে সূত্র মারফৎ খবর। যদিও শহরবাসীর একাংশ চাইছেন লকডাউন আরও চলুক। এরই মাঝে মঙ্গলবার শহর জুড়ে কোনো নতুন করে করোনা আক্রান্তের খবর না পাওয়ায় কিছুটা স্বস্তি মিলেছিল প্রশাসনিক মহলে। যদিও বৃহস্পতিবার লকডাউন তুলে নেওয়ার পর শহরের চেহারা কি দাঁড়ায় তা নিয়েও ভাবনাচিন্তা শুরু হয়ে গেছে।


কারণ দীর্ঘ ৮দিনের লকডাউন শেষে বৃহস্পতিবার রাস্তায়, বাজারে মানুষের ভিড় চোখে পড়ারই কথা। সেক্ষেত্রে জেলা প্রশাসন কি ব্যবস্থা নেয় তার দিকেই তাকিয়ে এখন শহরবাসী। শহরবাসীর একাংশ জানিয়েছেন, সংক্রমণের তীব্রতা কমা না পর্যন্ত জেলা প্রশাসনের উচিৎ লকডাউন বহাল রাখা। অপরদিকে, বুধবার রাজ্য জুড়ে লকডাউন কে সফল করতে পুলিশী তৎপরতা ছিল চোখে পড়ার মতো। পুলিশ কর্মীরা রাস্তায় বিনা কারণে বেরোনো পথ চলতি মানুষদের নয় ফিরিয়ে দিয়েছেন, নয়তো আইন অনুযায়ী আটক করে থানায় নিয়ে গেছে। বর্ধমান থানা সূত্রে জানা গেছে, এদিন লকডাউন ভাঙায় ৯জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।
(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});