Headlines
Loading...
কি কান্ড! মাঝরাতে বর্ধমানে ট্রাফিক পুলিশের কন্ট্রোল রুমের বাইরেই মদের আসর!

কি কান্ড! মাঝরাতে বর্ধমানে ট্রাফিক পুলিশের কন্ট্রোল রুমের বাইরেই মদের আসর!


ফোকাস বেঙ্গল ডেস্ক,পূর্ব বর্ধমান: কি ভয়ানক কান্ড!
এতো বাঘের ঘরে ঘোঘের বাসা। খোদ পুলিশের নজরদারি করার জন্য অফিস ঘরের ভাঙা জানলা দিয়ে জল বের করে ঘরের পাশে বসেই প্রায়ই মদ্যপান করছে কিছু যুবক। অভিযোগ, গভীর রাতে কখন কারা এই কুকর্ম করে যাচ্ছে তা এখনো জানতে পারেনি পুলিশ। তবে এই ঘটনা সামনে আসার পরই সতর্কতা নিয়েছে কর্তব্যরত ট্রাফিক পুলিশ। সতর্কতা হিসাবে পানীয় জলের সব মজুত রাতে ডিউটি শেষ হবার পর ফেলে দিয়েই যাচ্ছেন তাঁরা। কারণ হিসেবে ট্রাফিক পুলিশের এক আধিকারিক জানিয়েছেন, জলের সঙ্গে কিছু মিশিয়ে দিয়ে ফের ঘরের ভিতর রেখে দিলে সেটা বিপদ ডেকে আনতে পারে।


জানা গেছে, প্রায়ই এই ঘটনাটি ঘটছে বর্ধমানে নব নির্মিত রেল ফ্লাই ওভারের ওপর ট্রাফিক কন্ট্রোল রুমে। আর এই ঘটনার বিষয় জানাজানি হতেই সতর্ক হয়েছেন এই এলাকায় কর্তব্যরত ট্রাফিক কর্মীরা। উল্লেখ্য, সকাল ৬ টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত রেলওয়ে ওভার ব্রিজের ওপর রয়েছে জেলা ট্রাফিক পুলিশের কন্ট্রোল রুম। গুরুত্বপূর্ণ এই ফ্লাইওভার কে ব্যবহার করেই প্রতিদিন কয়েক হাজার মালবাহী ট্রাক থেকে যাত্রীবাহী বিভিন্ন যানবাহন উত্তরবঙ্গ, নদীয়া,মেদিনীপুর,কলকাতা থেকে বিহার, ঝাড়খন্ড অভিমুখে যাতায়াত করে। আর এহেন গুরুত্বপূর্ণ ট্রাফিক কন্ট্রোল রুমের নিরাপত্তা নিয়েই উঠছে প্রশ্ন।

জানা গেছে, সকালে ডিউটি করতে আসা ট্রাফিক কর্মীদের অনেকেই প্রায়ই অফিস রুমের পাশে মদের বোতল, চিপসের প্যাকেট পরে থাকতে দেখেছেন। এই ঘটনা উর্দ্ধতন কতৃপক্ষকেও জানানো হয়েছে বলে এক আধিকারিক জানিয়েছেন। ট্রাফিক কর্মীদের নিরাপত্তা আরও সুনিশ্চিত করতে এবং দুস্কৃতিদের চিহ্নিত করে এই কন্ট্রোল রুমের মেমারত কতো তাড়াতাড়ি হয় এখন সেটাই দেখার বিষয়।

0 Comments: