Headlines
Loading...
বর্ধমানে বন্ধুদের নিয়ে অ্যাম্বুলেন্সে যাবার সময় পুলিশের হাতে ৮ বন্ধু, চাঞ্চল্য

বর্ধমানে বন্ধুদের নিয়ে অ্যাম্বুলেন্সে যাবার সময় পুলিশের হাতে ৮ বন্ধু, চাঞ্চল্য


ফোকাস বেঙ্গল ডেস্ক,পূর্ব বর্ধমান: করোনা ভাইরাস নিয়ে চলছে নাকাবন্দি। সাধারণ মানুষ থেকে গাড়ি যাতায়াত নিয়ে যখন চলছে নজরদারী, সেই সময় খোদ অ্যাম্বুলেন্সে বন্ধুদের নিয়ে যাবার সময় পুলিশের হাতে আটক হলেন ৮জন। চাঞ্চল্যকর এই ঘটনা ঘটল শুক্রবার দুপুরে বর্ধমান শহরে। 

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, এদিন একটি এ্যাম্বুলেন্স দ্রুত গতিতে আলিশা থেকে বর্ধমান শহরের দিকে আসার সময় উল্লাস মোড়ের কাছে কর্তব্যরত ট্রাফিক পুলিশ গাড়িটিকে দাঁড় করানোর চেষ্টা করে। কিন্তু পুলিশ দেখেই গতি বাড়িয়ে সেটি শহরের ভেতর দিয়ে চলে আসে। কর্তব্যরত পুলিশের সন্দেহ হওয়ায় সঙ্গে সঙ্গে খবর দেওয়া হয় শহরের সমস্ত ট্রাফিক পয়েণ্টে। ইতিমধ্যে এ্যাম্বুলেন্সটি কার্জনগেটে আসলে সিগন্যাল লাল করে তাকে থামায় ট্রাফিক পুলিশ। এরপরই দেখা যায়, এ্যাম্বুলেন্সটিতে নেই কোনো রোগী। পরিবর্তে চালকের সিটের পাশে অন্য এক চালক। এবং রোগীর জায়গায় মোট ৬জন। তাঁরা কেউই রোগী নন। 

পুলিশী জিজ্ঞাসাবাদে তাঁরা জানায়, তেলি্পুকুর থেকে কয়েকজন বন্ধুকে নিয়ে তাঁরা বলগোনায় যাচ্ছিল। কিন্তু কেন এবং কি কারণে তারা যাচ্ছিল সে ব্যাপারে কোনো সদুত্তর মেলেনি। এমনকি তেলিপুকুর থেকে বর্ধমানের দিকে আসার জন্য অলিশার দিকে কেন যাবার প্রয়োজন হলো তা নিয়েও সন্দেহ দানা বেঁধেছে।  অ্যাম্বুলেন্সের যুবকদের কথাবার্তাতে অসঙ্গতি দেখে পুলিশ তাদের আটক করে বর্ধমান থানায় নিয়ে যায়। 

এদিকে, যখন অ্যাম্বুলেন্সের অভাবে করোনা আক্রান্ত সন্দেহদের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া নিয়ে সমস্যা দেখা দিচ্ছে। চাইলেও মিলছে না অ্যাম্বুলেন্স। সেই সময় অ্যাম্বুলেন্সের এই অপব্যবহার নিয়ে চোখ কপালে উঠেছে পুলিশ কর্তাদের। অনেকেই মনে করছেন, চলতি দুর্যোগের সময় অ্যাম্বুলেন্সকে এভাবে ব্যবহার করে অনেকেই নানান দুষ্কর্মও করতে পারেন। তদন্তে নেমেছে বর্ধমান থানার পুলিশ।

0 Comments: