728x90 AdSpace

Latest News

Thursday, 6 February 2020

বর্ধমানে বিপজ্জনক পুরনো রেলওয়ে ওভারব্রীজকে ভেঙে ফেলার উদ্যোগ রেলের, চূড়ান্ত দুশ্চিন্তায় শহরবাসী


ফোকাস বেঙ্গল ডেস্ক,পূর্ব বর্ধমান: আগামী ২০ ফেব্রুয়ারীর মধ্যে বর্ধমান রেলওয়ের পুরনো 
ওভারব্রিজ ভেঙে ফেলার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে চলেছেন জেলা প্রশাসন এবং রেল দপ্তর। এই ঘটনায় চুড়ান্ত অস্থিরতা দেখা দিয়েছে গোটা শহর জুড়েই। 

উল্লেখ্য, ব্রিটিশ আমলে তৈরী বর্ধমান রেলওয়ে ওভারব্রিজটির অবস্থা সংকটজনক বলে কয়েকবছর আগেই রেল দপ্তর ঘোষণা করেছিল। সেই মোতাবেক ব্রিজের দুই প্রান্তেই দুর্বল ও বিপজ্জনক সেতু উল্লেখ করে নোটিস বোর্ড লাগিয়ে দেওয়া হয়েছিল। এরইমধ্যে বিকল্প ব্যবস্থা হিসেবে পুরনো ব্রীজের পরিবর্তে নতুন ব্রীজ নির্মাণের কাজ শুরু হয়। একইসঙ্গে রেল দপ্তর ঘোষণা করে পুরনো এই ব্রীজকে ভেঙে ফেলা হবে।

এই বিষয়ে একাধিকবার জেলা প্রশাসনের সঙ্গে রেল কর্তৃপক্ষের বৈঠকও হয়। নতুন চতুর্মুখী ফ্লাইওভার তৈরির জন্য জমি অধিগ্রহণও করা হয়। আর এরপর গত বছরের সেপ্টেম্বর মাসে মেদিনীপুরের বীরসিংহ থেকে নতুন রেলওয়ে ওভারব্রীজ ও ফ্লাইওভারের উদ্বোধন করেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। 

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বর্ধমানে হাজির ছিলেন মুখ্যমন্ত্রীর প্রতিনিধি হিসাবে রাজ্যের পঞ্চায়েত মন্ত্রী সুব্রত মুখার্জ্জী। কিন্তু নতুন এই ব্রীজ উদ্বোধনের সঙ্গে সঙ্গে এই ব্রীজ দিয়ে যানবাহন চলাচলে নিষেধাজ্ঞাও জারী করা হয়। নির্দেশ দেওয়া হয় নতুন ব্রীজ দিয়ে কেবলমাত্র চারচাকার যানবাহনকেই যেতে দেওয়া হবে। পরিবর্তে পুরনো ব্রীজ দিয়ে তিনচাকা, দুচাকার যাবতীয় যানবাহন যাতায়াত করতে পারবে। 

এদিকে জানা গেছে, রেল দপ্তর অত্যন্ত ভয়াবহ অবস্থায় থাকা পুরোনো এই ওভারব্রিজ কে দ্রুত ভেঙে ফেলতে চাইছেন। যাতে কোনো বড় দুর্ঘটনায় ঘটার আগেই ব্যবস্থা গ্রহণ করা যায়। কিন্তু সেক্ষেত্রে পুরনো এই ব্রীজ ভেঙে ফেলা হলে সাধারণ মানুষ কিভাবে যাতায়াত করবেন তা নিয়ে ইতিমধ্যেই তৈরি হয়েছে বড়সড় প্রশ্ন। 

উল্লেখ্য, সম্প্রতি বর্ধমান ষ্টেশন ভবনের সামনের একাংশ হুড়মুড়িয়ে ভেঙে পড়ার ঘটনায় এবং একজন মারা যাওয়ার ঘটনায় রেল কর্তৃপক্ষ নড়েচড়ে বসেছে। ফের বহু পুরোনো এই ব্রিজে কোনো দুর্ঘটনা ঘটার আগেই তাই ব্রীজটিকে ভেঙে ফেলার জন্য প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে রেল। কারণ রেলের শতাধিক বছরের পুরনো ভবন ভেঙে পড়ার ঘটনায় রেলের গাফলতি ও উদাসীনতাকেই দায়ী করেছেন আমজনতা। 

জানা গেছে, প্রায় ৯০ বছরের পুরনো এই রেলওয়ে ব্রীজটিকে নিয়ে তাই এবার রীতিমত চিন্তিত রেল কর্তৃপক্ষ। যদিও এই ব্রীজ ভাঙা হলে পরিবর্তে একটি ফুটব্রীজ তৈরী করার দাবী জানানো হয়েছে রেল কর্তৃপক্ষের কাছে। কিন্তু এখনও সেব্যাপারে কোনো সবুজ সংকেত মেলেনি বলে জানা গেছে। 

তারই মাঝে এবার রেল কর্তৃপক্ষ এই পুরনো ব্রীজকে ভেঙে ফেলার জন্য উঠেপড়ে লাগায় চিন্তার ভাঁজ দেখা দিয়েছে সাধারণ মানুষের মধ্যে। কারণ নতুন যে চতুর্মুখী ফ্লাইওভার তৈরি হয়েছে, সেখান দিয়ে কেবলমাত্র চারচাকার যানবাহন যাতায়াত করলেও বাকিরা কিভাবে যাতায়াত করবেন তা নিয়েই এবার চিন্তা বাড়তে শুরু করেছে। 

এব্যাপারে পুর্ব বর্ধমানের জেলাশাসক জানিয়েছেন, রেল দপ্তর থেকে তাঁদের জানানো হয়েছে পুরনো এই ব্রীজের অবস্থা অত্যন্ত ভয়াবহ। যে কোনো সময়ই বড়সড় দুর্ঘটনা ঘটাও অসম্ভব নয়। তাই তাঁরা চাইছেন দ্রুত এই পুরনো ব্রীজকে ভেঙে ফেলতে। সেক্ষেত্রে বিকল্প কি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে তা নিয়ে এখনও চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়নি। 

জেলাশাসক বিজয় ভারতী জানিয়েছেন, এব্যাপারে আগামী ২০ ফেব্রুয়ারীর মধ্যে রেল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে তাঁরা বৈঠকে বসছেন। সেখানেই এব্যাপারে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হতে পারে। এই বৈঠকে হাজির থাকবেন আরবিএনএলের চীফ জেনারেল ম্যানেজারও। জেলাশাসক জানিয়েছেন, সেক্ষেত্রে নতুন ব্রীজ দিয়ে কিভাবে বাকি যানবাহন যাতায়াত করবে এই বৈঠকের পরই সে ব্যাপারে তাঁরা সিদ্ধান্ত নেবেন।
বর্ধমানে বিপজ্জনক পুরনো রেলওয়ে ওভারব্রীজকে ভেঙে ফেলার উদ্যোগ রেলের, চূড়ান্ত দুশ্চিন্তায় শহরবাসী
  • Title : বর্ধমানে বিপজ্জনক পুরনো রেলওয়ে ওভারব্রীজকে ভেঙে ফেলার উদ্যোগ রেলের, চূড়ান্ত দুশ্চিন্তায় শহরবাসী
  • Posted by :
  • Date : February 06, 2020
  • Labels :
  • Blogger Comments
  • Facebook Comments

0 comments:

Post a comment

Top