728x90 AdSpace

Latest News

Thursday, 5 December 2019

বর্ধমানে দিন দুপুরে বৃদ্ধার গলা থেকে সোনার হার ছিনতাই করে পালালো দুস্কৃতিরা, চাঞ্চল্য


ফোকাস বেঙ্গল ডেস্ক,বর্ধমান: প্রকাশ্য দিবালোকে দুপুর ১টা নাগাদ বর্ধমানের ৩ নং ইছলাবাদ এলাকায় বাড়ির সামনে থেকে এক বৃদ্ধার গলার হার ছিনিয়ে নিয়ে মোটর বাইকে পালালো দুষ্কৃতিরা। এই ঘটনায় তীব্র চাঞ্চল্য দেখা দিয়েছে। প্রকাশ্য দিবালোকে এই ঘটনায় এলাকার বাসিন্দারা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগতে শুরু করেছে। 

জানা গেছে ৩ নং ইছলাবাদের বেনেপাড়া, কামারশালা এলাকার বাসিন্দা ৬৬ বছরের বৃদ্ধা প্রতিমা চ্যাটার্জি  তাঁর বাড়ি লাগোয়া ছেলের ষ্টেশনারী দোকানে দাড়িয়ে ছিলেন। ছেলে নিলাময় চ্যাটার্জি বাইরে কাজে গেছিলেন। বৌমা সর্বাণী চ্যাটার্জি বাড়ির ভিতরে ছিলেন। প্রতিমা দেবী জানিয়েছেন, এইসময় বছর ২৬ এর দুই যুবক একটি মোটরবাইক নিয়ে তাঁর দোকানের সামনে আসে। প্রথমে তারা তাঁর কাছে চুইনগাম আছে কিনা জানতে চায়। তা না থাকায় চকোলেট চায়। 

অভিযোগ, এই সময় আচমকাই এক যুবক বৃদ্ধার গলায় থাকা প্রায় ১ ভরি সোনার হার ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে। বৃদ্ধা তাঁর হারের একটা অংশ চেপে ধরেন। কিন্তু হারের বাকি অংশটা ছিনিয়ে নিয়ে পালায় দুস্কৃতিরা। এই ঘটনায় বর্ধমান থানার পুলিশ তদন্তে নেমেছে। গোটা ঘটনায় রীতিমত আতংক দেখা দিয়েছে গোটা এলাকায়।

প্রতিমা দেবীর ছেলে নিলাময় জানিয়েছেন, তিনি নিজের কাজে বাইরে গিয়েছিলেন। তিনি ফিরে এসে জানতে পারেন তার মায়ের গলা থেকে দুজন সোনার হার ছিনিয়ে নিয়ে পালিয়ে গেছে। তিনি জানান, ঘটনার সময় যাঁরা বিষয় টি দেখেছেন তাদের বর্ণনা অনুযায়ী দুস্কৃতিরা একটি লাল কালো রঙের 220 পালসার মোটর সাইকেল নিয়ে এসেছিল। তাঁর অনুমান দুস্কৃতিরা তাঁদের বাড়ির আশপাশে কোথায় কোথায় সি সি ক্যামেরা লাগানো আছে সে ব্যাপারে আগেই রেইকি করে গিয়েছিল। আর তাই পাশের বাড়ির ক্যামেরায় দুষ্কৃতীদের সম্পুর্ন ছবি ধরা পড়েনি। 

যদিও পুলিশ সেই ফুটেজ সংগ্রহ করে নিয়ে গেছে। নিলাময় বাবু জানিয়েছেন, তাঁর মায়ের গলা থেকে হার সজোরে ছিনিয়ে নেওয়ায় মায়ের গলার চামড়া ছিঁড়ে গেছে, লাল হয়ে আছে। মানসিক ভাবেও বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছেন তিনি। তিনি জানিয়েছেন, দিনের বেলাতেই এই ঘটনা ঘটে যাওয়ায় শুধু তাঁরাই নন, এলাকার অন্যান্য পরিবারের লোকেরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন।
বর্ধমানে দিন দুপুরে বৃদ্ধার গলা থেকে সোনার হার ছিনতাই করে পালালো দুস্কৃতিরা, চাঞ্চল্য
  • Blogger Comments
  • Facebook Comments

0 comments:

Post a comment

Top