Headlines
Loading...
আগামী ১ জানুয়ারী থেকে বর্ধমান শহরে টোটো নিয়ন্ত্রণে পথে নামছে জেলা প্রশাসন

আগামী ১ জানুয়ারী থেকে বর্ধমান শহরে টোটো নিয়ন্ত্রণে পথে নামছে জেলা প্রশাসন


ফোকাস বেঙ্গল ডেস্ক,বর্ধমান: টোটোর কারণে নাজেহাল বর্ধমান শহরবাসীকে নিত্য যানজট যন্ত্রনা থেকে রেহাই দিতে এবার একগুচ্ছ পদক্ষেপ গ্রহণ করলো জেলা প্রশাসন। বৃহস্পতিবার বর্ধমান শহরের যানজট এবং তার মূল কারণ ইকো রিক্সো নিয়ে পূর্ব বর্ধমান জেলা শাসক বিজয় ভারতী, জেলা পুলিশ সুপার ভাস্কর মুখোপাধ্যায় সহ জেলা প্রশাসনের আধিকারিক, পঞ্চায়েত ও পুরসভা প্রতিনিধিদের নিয়ে বৈঠক করা হল। বৈঠকে হাজির ছিলেন বিভিন্ন টোটো ইউনিয়নের প্রতিনিধিরাও। 

বৈঠক শেষে জেলাশাসক জানিয়েছেন, এদিন টোটো ইউনিয়নগুলির দেওয়া রিপোর্ট অনুসারে বর্ধমান শহরে প্রায় ১৪ হাজার টোটো চলছে। এর মধ্যে কিছু টোটো টিন নাম্বার পেয়েছে। তিনি জানিয়েছেন, অনেক সময়ই দেখা যায় পঞ্চায়েত থেকেও টোটো চলে আসছে শহরে। এদিন এই বিষয়গুলি নিয়েও বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। আলোচনা শেষে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে - পুরসভা ও পঞ্চায়েতের টোটোগুলিকে আলাদা চিহ্নে চিহ্নিত করা হবে। যাদের দুর থেকেই বুঝতে পারা যাবে। জিটি রোড দিয়ে টোটো চলাচল করবে না। কোন কোন রাস্তায় কোথায় কোথায় টোটো স্ট্যাণ্ড থাকবে তা চিহ্নিত করা হবে। প্রত্যেকটি টোটোকে নির্দিষ্ট রুটেই চলাচল করতে হবে। এজন্য প্রতিটি টোটোতেই রুট লেখা থাকবে। সরকার নির্ধারিত ইকো রিক্সাগুলিকেই চলতে দেওয়া হবে। 

জেলাশাসক জানিয়েছেন, এদিন বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে পরিবহণ দপ্তর থেকে যাঁর নামে টোটোর রেজিষ্টেশন দেওয়া হবে তাঁকেই ড্রাইভিং লাইসেন্স নিতে হবে এবং তিনিই টোটো চালাবেন। শুধু তাই নয়, প্রতিটি টোটোতেই রাখতে হবে পরিবহণ দপ্তর, পুরসভা, পঞ্চায়েত দপ্তরের যাবতীয় কাগজপত্র, ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রভৃতি। এদিন পুলিশ সুপার জানিয়েছেন, টোটোর রুট, টোটোর স্ট্যাণ্ড প্রভৃতিগুলি আগামী এক মাস তথা ডিসেম্বর মাস জুড়ে তৈরী করা হবে। এরপর আগামী নতুন বছরের ১ জানুয়ারী থেকে পুলিশ ও প্রশাসন যৌথভাবে সিদ্ধান্তগুলি কার্যকর করতে রাস্তায় নামবে। 

উল্লেখ্য, সম্প্রতি বর্ধমান শহরের জিটি রোড দিয়ে টোটো যাতায়াতের কারণে ট্রাফিক পুলিশ বেশ কিছু টোটো ভাঙচুর করে। সেই ঘটনার খবর রীতিমতো ছড়িয়ে পড়ে রাজ্য জুড়ে। পুলিশের এক্তিয়ার নিয়েও ওঠে প্রশ্ন। পাশাপাশি এই ঘটনার দুদিন পরেই টোটোর ধাক্কায় ট্রাক্টরের সামনে পরে গিয়ে কার্জন গেট চত্বরে মৃত্যু হয় এক 14 বছরের কিশোরের। আর এরপরই শহরের নিয়ন্ত্রণহীন টোটোর দাপাদাপি রুখতে পথে নামে সব রাজনৈতিক দল। টোটো নিয়ন্ত্রণে প্রশাসনিক ব্যর্থতাকেই দায়ী করে এই অবস্থার জন্য সকলে। আর এরপরই শহরের যানজট এবং টোটো র গতিবিধির উপর লাগাম টানতে এদিন একগুচ্ছ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করলো জেলা প্রশাসন।
(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});