Headlines
Loading...
শৈশবকে ফিরিয়ে দেওয়ার আর্জি নিয়ে এবছর বর্ধমানে কিরণ সংঘের পুজোর থিম অন্যতম আকর্ষণ

শৈশবকে ফিরিয়ে দেওয়ার আর্জি নিয়ে এবছর বর্ধমানে কিরণ সংঘের পুজোর থিম অন্যতম আকর্ষণ


ফোকাস বেঙ্গল ডেস্ক,বর্ধমান: হাতে গোণা আর মাত্র কয়েকটা দিন। বাঙালীর হৃদয়ে পুজো পুজো ভাব ইতিমধ্যেই চলে এসেছে। একদিকে যেমন ভাবগম্ভীর পরিবেশে পারিবারিক পুজোর প্রস্তুতি জোর কদমে শুরু হয়েছে - তেমনি বারোয়ারী পুজোয় থিমের বাহার এবছরেও রীতিমত একে অপরকে টেক্কা দিতে শুরু করেছে।


বর্ধমান শহরে ৫ নং ইছলাবাদ কিরণ সংঘের পুজোর ৬২তম বর্ষে থিম 'গণশার চোখে দুর্গাপুজো'। এবছর পুজোর বাজেট ২৪ লক্ষ টাকা। শৈশবকে ফিরিয়ে দেওয়ার আকুল আকুতিকেই বিভিন্ন পর্যায়ে ভাগ করে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে মণ্ডপে। থিম মেকার সঞ্জয় দাস জানিয়েছেন, গতবছর তাঁরা ঔষধের বাক্সের প্যান্ডেল করে চমক দিয়েছিলেন। গতবার তাঁদের থিম ছিল কংক্রিটের শহরে সঞ্জীবনী মাদূর্গা। বিশ্ব উষ্ণায়নের ফলে পৃথিবীর ভারসাম্য নষ্ট হচ্ছে, এই বার্তাকেই তুলে ধরা হয়েছিল। নয়নয় করেও ১০টি পুরষ্কার ছিনিয়ে নিয়েছিলেন তাঁরা। আর এবার গনশার চোখে দুর্গা পুজো তাঁরা একটি সামাজিক বার্তা দিতে চাইছেন। 

শিশুশ্রম বন্ধ হোক, শিশু শ্রমিক নিয়োগ একটি সামাজিক অপরাধ- এটাকেই তুলে ধরতে তাঁরা মণ্ডপসজ্জায় ব্যবহার করেছেন ২২ রকমের বিষয়কে। চা তৈরির 22 রকমের সামগ্রী দিয়ে তৈরি হচ্ছে গোটা মণ্ডপ। যার মধ্যে কুড়ি লক্ষ চায়ের ব্যাগ, কুড়ি হাজার চায়ের গ্লাস। এ্যালুমিনিয়ামের সরঞ্জাম, গৃহস্থালীর প্রয়োজনে ব্যবহৃত কেটলি, জনতা স্টোভ, গামছা, লোহার সাঁড়াশি, গজাল, তেলের টিন প্রভৃতি ব্যবহার করা হয়েছে। থিমে দেখানো হয়েছে একটি মা-বাবা মরা অনাথ ছেলের চায়ের দোকানে শৈশব হারানোর কাহিনী। কিভাবে শিশু শ্রমরুপী সাঁড়াশির পেষণে শৈশব আটকে রয়েছে তাই তুলে ধরার চেষ্টা করা হয়েছে এই থিমের মধ্যে দিয়ে। একইসঙ্গে কিভাবে তা থেকে উত্তরণ ঘটবে তাও তুলে ধরা হয়েছে। পাশাপাশি গোটা মণ্ডপের আলোকসজ্জা আগত দর্শকদের যে এক আলাদা অনুভূতির স্পর্শ দেবে এই কোথাও জানালেন থিম মেকার সঞ্জয় বাবু। 

পুজো কমিটির সম্পাদক অভিজিত নাগ জানিয়েছেন, তাঁরা আশা করছেন এবারেও তাঁরা দর্শকদের মন জয় করতে পারবেন। কারণ পুজোর এই মণ্ডপের পাশাপাশি থাকছে প্যান্ডেলের চারপাশে আড্ডা জন এবং প্লে জোন। একসঙ্গে প্রায় ৩০০ জন বসতে পারবেন সেখানে। 
(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});