728x90 AdSpace

Latest News

Thursday, 26 September 2019

অথৈ জলে বর্ধমানের চতুর্মুখী রেলব্রীজ উদ্বোধন পর্ব, কবে চালু হবে কেউ জানেনা


ফোকাস বেঙ্গল ডেস্ক,বর্ধমান: বর্ধমা্নের রেলব্রীজ উদ্বোধন নিয়ে ফের অনিশ্চয়তা দেখা দিল। মঙ্গলবার রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে খোদ মুখ্যমন্ত্রী রেলব্রীজের উদ্বোধন করলেও তা নিয়ে আকচাআকচি চলতে থাকার মাঝেই রেল দপ্তর থেকে ঘোষণা করা হয় শুক্রবার রেলপ্রতিমন্ত্রী সুরেশ চান্নাবাসাপ্পা অঙ্গদি ওই ব্রীজের উদ্বোধন করবেন। কিন্তু বৃহস্পতিবার রাতে রেল সূত্রে জানা গেল, আপাতত রেলব্রীজের উদ্বোধন পর্ব হচ্ছে না। সামনেই দুর্গাপুজো। তাই যাত্রীসাধারণের অসুবিধার কথা মাথায় রেখেই এই উদ্বোধন পর্ব পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে। এদিনই রাতে রেল দপ্তরের পিআরও অমিতাভ চ্যাটার্জ্জী জানিয়েছেন, শুক্রবারের রেলব্রীজ উদ্বোধন পর্ব হচ্ছে না। কবে হচ্ছে তা পরে জানিয়ে দেওয়া হবে।

উল্লেখ্য, প্রথমদিকে ৩০ সেপ্টেম্বর বর্ধমানের এই ঝুলন্ত রেলব্রীজ উদ্বোধন করার কথা ছিল কেন্দ্রীয় রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েলের।কিন্তু তিনি জরুরী কাজে দেশের বাইরে চলে যাওয়ায় রেল প্রতিমন্ত্রী সুরেশ অঙ্গদিকে এই ব্রীজ উদ্বোধন করার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয় শুক্রবার। কিন্তু বৃহস্পতিবার এব্যাপারে বর্ধমান ষ্টেশন সংলগ্ন কোনো এলাকাতেই উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের কোনো প্রস্তুতি শুরু না হওয়ায় প্রশ্ন উঁকি দিতে শুরু করে। আর এরপরই রাতের দিকে অমিতাভ চ্যাটার্জ্জী জানিয়ে দেন, উদ্বোধন পর্ব পিছিয়ে যাচ্ছে। রেল সূত্রে আরও জানা গেছে, খুব সম্ভবত এই রেলব্রীজ উদ্বোধন পুজোর আগে আর হচ্ছে না। ফলে বর্ধমানবাসীর ভোগান্তির দিন কমল না, বরং বেড়েই চলল।

উল্লেখ্য, মঙ্গলবার মেদিনীপুরের বীরসিংহ থেকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় এই ব্রীজের উদ্বোধন করেন। এরপরই ব্রীজের একাংশের ব্যারিকেড খুলে দেওয়া হয়। কিন্তু ব্রীজ দিয়ে কোনো যানবাহন কে যাতায়াতই করতে দেওয়া হয়নি। ব্রীজের উপর বর্ধমান থানার পুলিশ পাহারা দিতে থাকেন।এরই মধ্যে বুধবার সন্ধ্যে নাগাদ আচমকাই চতুর্মুখী ব্রীজের দুটি দিককে খুলে দেন শহরের তৃণমূলের নেতারা। আগেই একটি দিক খুলে দেওয়া হয়েছিল। ফলে বিশেষত কাটোয়ার দিক থেকে কালনার দিকে ব্রীজের যাতায়াত শুরু হয়ে যায়। এমনককি শহরের টাউন সার্ভিস বাস কে ব্রিজের উপরেই যাত্রী নামাতে দেখা যায়। রেলের নির্দেশ ছাড়াই ব্রীজের ব্যারিকেড খুলে দিয়ে জোর করে তৃণমূলের নেতারা যান চলাচল শুরু করে দেওয়ার খবর গিয়ে পৌঁছায় রেলদপ্তরে। এভাবে ঘণ্টাখানেক ব্রীজ দিয়ে যানবাহন চলার পর ফের জেলার পুলিশ গিয়ে ব্রীজের যাতায়াত বন্ধ করে দেন।

বুধবার সন্ধ্যে থেকে এই নাটক চলার পর বৃহস্পতিবার পুরোপুরি বন্ধ থাকে যানবাহন চলাচল। এমনকি এদিনও ব্রীজের নানান জায়গায় কাজকর্ম চালিয়ে যান ব্রীজ নির্মাণকারী সংস্থার কর্মীরা। কিন্তু বৃহস্পতিবার সন্ধ্যে থেকে ব্রিজের উদ্বোধন ঘিরে সন্দেহ তীব্র আকার ধারণ করে। শুক্রবার রেলপ্রতিমন্ত্রীর উদ্বোধন করার ঘোষণা সত্ত্বেও কোনো প্রস্তুতি না হওয়ায় এই সন্দেহ আরও তীব্র হয়। এরপরই সন্ধ্যে নাগাদ জানা যায় এবারও রেলব্রীজ উদ্বোধন পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে। যদিও রাজ্য সরকারের তরফে রেল ব্রীজের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের পরেও যান চলাচল স্বাভাবিকভাবে শুরু না হওয়ার বিষয়ে কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।
অথৈ জলে বর্ধমানের চতুর্মুখী রেলব্রীজ উদ্বোধন পর্ব, কবে চালু হবে কেউ জানেনা
  • Blogger Comments
  • Facebook Comments

0 comments:

Post a Comment

Top