Headlines
Loading...
 লাগাম ছাড়া খরচ - বর্ধমান জেলা পরিষদে আধিকারিকদের গাড়িতে জিপিএস চালুর প্রস্তাব খারিজ, আলোড়ন

লাগাম ছাড়া খরচ - বর্ধমান জেলা পরিষদে আধিকারিকদের গাড়িতে জিপিএস চালুর প্রস্তাব খারিজ, আলোড়ন


ফোকাস বেঙ্গল ডেস্ক,বর্ধমানঃ আয়ের তুলনায় ব্যয় বেশি। মাত্র ৫ বছরেই পূর্ব বর্ধমান জেলা পরিষদের ১৭টি গাড়ির জন্য তেল খরচের পরিমাণ দেড় কোটি টাকারও বেশি। এই তথ্য সামনে আসতেই গোটা জেলা জুড়ে শুরু হয়েছে ব্যাপক চাঞ্চল্য। একদিকে, এই খরচের রাশ টানা, কেন এই খরচ তা নিয়ে বিশ্লেষণ করা এবং অন্যদিকে,পূর্ব বর্ধমান জেলা পরিষদের নিজস্ব তহবিলে আয় বাড়ানোর লক্ষ্য নিল জেলা পরিষদ কর্তৃপক্ষ।

গত বৃহস্পতিবার জেলা পরিষদের অর্থ স্থায়ী সমিতির বৈঠকেই এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি হয়। জেলা পরিষদ সূত্রে জানা গেছে, গত ৪ জুলাই জেলা পরিষদের অর্থ স্থায়ী সমিতির বৈঠকে গাড়ির তেল খরচ বাবদ এই বিপুল অর্থ ব্যয় নিয়ে সভাধিপতি শম্পা ধাড়া ১৭টি গাড়িতেই জিপিএস লাগানোর প্রস্তাব দেন। কিন্তু সেদিন এ বিষয়ে বিস্তারিত কোনো আলোচনা হয়নি। এরপর গত বৃহস্পতিবার অর্থ স্থায়ী সমিতির বৈঠকে এই বিষয় নিয়ে রীতিমত ঝড় ওঠে। বৈঠকে হাজির ছিলেন জেলাশাসক বিজয় ভারতীও।

জেলা পরিষদ সূত্রে জানা গেছে, বিগত ৫ বছর তথা জেলা পরিষদের সভাধিপতি হিসাবে দেবু টুডু থাকাকালীন গাড়ির তেল খরচ বাবদ প্রায় দেড় কোটি টাকা খরচ হয়েছে। এমনকি ওই ৫ বছরে আয় ও ব্যয়ের মধ্যে রীতিমত অসামঞ্জস্য ধরা পড়ে। জানা গেছে, ২০১৪-২০১৫ সালে জেলা পরিষদের নিজস্ব তহবিলে যেখানে আয় হয়েছে ৭ কোটি ৩৮ লক্ষ ৭১ হাজার ১৮৭ টাকা, সেখানে খরচ হয় ৭ কোটি ১ লক্ষ ৪১ হাজার ১৬০ টাকা। ২০১৫-১৬ অর্থ বর্ষে আয় ৫ কোটি ১ লক্ষ ২ হাজার ৫০২ টাকা এবং খরচ ৫ কোটি ৪৯ লক্ষ ৭৮ হাজার ৬৫৫ টাকা। ২০১৬-১৭ সালে আয় ৫ কোটি ৮৯ লক্ষ ২৪ হাজার ৯৭৫ টাকা। খরচ ৪ কোটি ৫০ লক্ষ ১৬ হাজার ৯৭৯ টাকা। ২০১৭-১৮ বর্ষে আয় ৫ কোটি ১১ লক্ষ ৯৮ হাজার ১০ টাকা খরচ হয় ৭ কোটি ৮৮ লক্ষ ৫৯ হাজার ৮২৩ টাকা।

অর্থাৎ ৪ বছরে নিজস্ব তহবিলে জমা পড়েছে ২৩ কোটি ৪০ লক্ষ ৯৬ হাজার ৬৭৪ টাকা আর খরচ হয়েছে ২৪ কোটি ৮৯ লক্ষ ৯৬ হাজার ৬১৭ টাকা। ফলে ঘাটতির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১ কোটি ৪৮ লক্ষ ৯৯ হাজার ৯৪৩ টাকা। স্বাভাবিকভাবেই লাগাম ছাড়া খরচের ফলে জেলা পরিষদের নিজস্ব তহবিলে টান পড়েছে। তাতে রাশ টানতে বেশকিছু সিদ্ধান্ত নিয়েছে জেলা পরিষদ।

এদিকে, গাড়ির তেল খরচ বাবদ বিস্তর খরচের রাশ টানতে সভাধিপতি প্রতিটি গাড়িতেই জিপিএস লাগানোর প্রস্তাব যা দিয়েছিলেন আগের বৈঠকে, বৃহস্পতিবারের বৈঠকে তা বাতিল করে দেন বোর্ডের সিংহভাগ সদস্য। তাঁদের আপত্তিতে জিপিএস লাগানোর প্রস্তাব খারিজ হয়ে যায়। আর তাতেই প্রশ্ন উঠেছে, সরকারী টাকায় যথেচ্ছ গাড়ি ব্যবহার করা ফাঁসের ভয়েই কি এই বাধা? যদিও জানা গেছে, এই বৈঠকেই জেলাশাসক জানিয়েছেন, তিনি তাঁর গাড়িতে এই পদ্ধতি ব্যবহার করবেন।

0 Comments: