Headlines
Loading...
বর্ধমান জেলাপরিষদে কর্মাধ্যক্ষের ঘরে ঠিকাদারের হাতে আক্রান্ত রাজ্যের কাবাডি খেলোয়াড়, চাঞ্চল্য

বর্ধমান জেলাপরিষদে কর্মাধ্যক্ষের ঘরে ঠিকাদারের হাতে আক্রান্ত রাজ্যের কাবাডি খেলোয়াড়, চাঞ্চল্য


ফোকাস বেঙ্গল ডেস্ক,বর্ধমানঃ নজিরবিহীন ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়াল পূর্ব বর্ধমান জেলা পরিষদ ভবনে। ব্যক্তিগত কাজে এসে এক ঠিকাদারের হাতে আক্রান্ত হলেন বাংলার বিখ্যাত কবাডি খেলোয়াড় সেখ হাবিব আলি। তাঁর কলার ধরে হেনস্থা করা হয় বলে অভিযোগ। এই ঘটনায় মানষিক ভাবে চরম বিপর্যস্থ হয়ে পড়েছেন তিনি। এই ঘটনার পরেই হাবিব আলি গোটা বিষয়টি রাজ্যের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ সহ জেলা পরিষদের সভাধিপতিকেও জানিয়েছেন। হাবিব আলি জানিয়েছেন, এই ঘটনায় তিনি অভিযুক্ত ঠিকাদারের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করবেন থানায়। 

বৃহস্পতিবার হাবিব আলি জানিয়েছেন, এদিন দুপুরের দিকে তিনি ব্যক্তিগত কাজে জেলা পরিষদে আসেন। জেলা পরিষদের কৃষি কর্মাধ্যক্ষ মহম্মদ ইসমাইলের সঙ্গে দেখা করেন। মহম্মদ ইসমাইলের ঘরেই তিনি বসেছিলেন। ইসমাইল সাহেব অফিসের কাজে বেড়িয়ে যাওয়ার পরে তিনি একাই বসেছিলেন। সেই সময় তিনি মোবাইলে নিজের কাজ করছিলেন। হাবিব জানিয়েছেন, এই সময় একজন এসে তাকে ঘর থেকে ডেকে নিয়ে যান। এরপর তার কলার ধরে ওই ব্যক্তি দাবী করেন, টেণ্ডার উঠিয়ে নিতে হবে। কিসের টেণ্ডার, কি বিষয় তিনি জানতে চাইলে তাকে কেবলই বলা হয় টেণ্ডার তুলে নিতে হবে। হাবিব জানিয়েছেন, তিনি টেণ্ডারের সঙ্গে যুক্ত নন বা তিনি কিছু জানেন না বলে জানান। কিন্তু তা সত্ত্বেও তপন আদিত্য নামে ওই ঠিকাদার তাঁকে হেনস্থা করতে থাকেন। এই ঘটনায় তিনি প্রতিবাদ করলে জেলা পরিষদের অন্য কর্মীরা সেখানে চলে আসেন। তারপর ওই ঠিকাদার চলে যান। 

হাবিব জানিয়েছেন, জেলা পরিষদে যে কেউ আসতেই পারেন। কিন্তু এভাবে আক্রান্ত হতে হবে তিনি কখনও ভাবেননি। তিনি জানিয়েছেন,তিনি কাবাডিতে বাংলাকে প্রতিনিধিত্ব করেছেন। বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের তিনি কাবাডি কোচও ছিলেন। বর্তমানে তিনি রেলে কর্মরত। এই অবস্থায় তাঁকে হেনস্থা করার এই ঘটনায় বর্ধমান জেলা পরিষদের সম্মান ভুলুণ্ঠিত হয়েছে। এমনকি জেলা পরিষদে খোদ কর্মাধ্যক্ষ এর ঘরে ঢুকে এই ঘটনা ঘটানোয় নিরাপত্তা নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে। গোটা বিষয়টি তিনি জেলা পরিষদের সভাধিপতিকেও জানিয়েছেন। 

এদিকে, এই ঘটনা সম্পর্কে জেলা পরিষদের কৃষি কর্মাধ্যক্ষ মহম্মদ ইসমাইল রীতিমত ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। তিনিও জানিয়েছেন,বর্ধমান জেলা পরিষদের ইতিহাসে এই ধরণের ঘটনা আগে হয়নি। গোটা বিষয়টি তিনি উর্ধতন নেতৃত্বকে জানিয়েছেন। অন্যদিকে, এব্যাপারে জেলা পরিষদের পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ উত্তম সেনগুপ্ত জানিয়েছেন, শারীরিক অসুস্থতার জন্য তিনি কয়েকদিন জেলা পরিষদে যেতে পারেননি। তবে তিনি শুনেছেন এরকম একটি ঘটনা ঘটেছে। কেন এরকম হল তা খতিয়ে দেখা হবে। এর পিছনে অন্য কোনো কারণ আছে কিনা তাও খতিয়ে দেখা হবে।

0 Comments: