Headlines
Loading...
বর্ধমানে টুকলিতে বাধা,পরীক্ষা শেষে প্রতিবাদী পরীক্ষার্থীর মাথা ফাটাল আরেক পরীক্ষার্থী

বর্ধমানে টুকলিতে বাধা,পরীক্ষা শেষে প্রতিবাদী পরীক্ষার্থীর মাথা ফাটাল আরেক পরীক্ষার্থী



ফোকাস বেঙ্গল ডেস্ক,বর্ধমানঃ রবিবার বর্ধমানে খাদ্য দপ্তরের ফুড ইনসপেক্টরের পদে চাকরির পরীক্ষায় নকলে বাধা দেওয়ায় এক পরীক্ষার্থীকে বেধড়ক মারধরের অভিযোগ উঠল অপর এক পরীক্ষার্থীর বিরুদ্ধে। মারধরে জখম পরীক্ষার্থী বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তাঁর বাবা বর্ধমান থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন। তার ভিত্তিতে মামলা রুজু হয়েছে। অভিযুক্ত অবশ্য ধরা পড়েনি। 



বর্ধমান থানার এক অফিসার বলেন, অভিযোগ পাওয়া মাত্র মামলা রুজু করে তদন্ত শুরু হয়েছে। অভিযুক্তকে ধরতে সব রকম ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। জানা গেছে,বর্ধমান শহরের খাজা আনোয়ার বেড়ের বাসিন্দা নবীন পাখিরার সিট পড়ে শহরের বাবুরবাগ সিএমএস হাইস্কুলে। পরীক্ষা চলাকালীন তিনি দেখতে পান, হুগলীর বাসিন্দা অভিজিৎ রায় নামে এক পরীক্ষার্থী মোবাইলে প্রশ্নপত্রের ছবি তুলছেন এবং সেই ছবি হোয়াটস্ অ্যাপে বাইরে পাঠিয়ে দিচ্ছেন। সঙ্গে সঙ্গে নবীন তার প্রতিবাদ করেন। বিষয়টি পরীক্ষককে জানান নবীন। পরীক্ষক অভিজিতকে মোবাইলে ছবি তুলতে নিষেধ করেন। যদিও ওই পরীক্ষক অভিজিতের মোবাইলটি কেড়ে নেননি। 

এদিকে, পরীক্ষা শেষ হওয়ার পর অভিজিত নবীনকে দেখতে পেয়ে কেন সে অভিযোগ করেছে তা নিয়ে ব্যাপক মারধর করেন। ইট দিয়ে তাঁর মাথা ফাটিয়ে দেন অভিজিত। ইটের আঘাতে জ্ঞান হারান নবীন। স্থানীয় বাসিন্দারা উদ্ধার করে তাঁকে বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। খবর পেয়ে নবীনের বাবা ভূতনাথ পাখিরা হাসপাতালে আসেন। রবিবার রাতেই তিনি বর্ধমান থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। নবীন জানিয়েছেন, হলে একজনকে মোবাইলে প্রশ্নপত্রের ছবি তুলে তা বাইরে পাচার করা দেখতে পেয়ে তিনি প্রতিবাদ করেন। তার জেরে তাকে পরীক্ষার শেষে মারধর করা হয়। পরীক্ষক কেন মোবাইলটি কাড়লেন না তা তিনি বুঝতে পারেননি। 

ভূতনাথ পাখিরা বলেন, চাকরির পরীক্ষায় এভাবে টুকলির চেষ্টা হলে অন্য ছেলে-মেয়েরা কিভাবে চাকরি পাবে? টুকলির প্রতিবাদ করায় তাঁর ছেলেকে মার খেতে হয়েছে - এটা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক। প্রশাসনের উচিত উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া। অন্যদিকে, পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ঘটনাস্থল থেকে অভিজিতের আধার কার্ড পুলিশ উদ্ধার করেছে। এব্যাপারে তদন্ত শুরু করেছে বর্ধমান থানার পুলিশ।

0 Comments: