Headlines
Loading...
দুস্থ ছাত্র ছাত্রীদের সঙ্গেই মেয়ের জন্মদিন পালন করলেন সিতারামপুরের মুখার্জি দম্পতি

দুস্থ ছাত্র ছাত্রীদের সঙ্গেই মেয়ের জন্মদিন পালন করলেন সিতারামপুরের মুখার্জি দম্পতি



সৌমিক ভট্টাচার্য্য,পশ্চিম বর্ধমানঃ জন্মদিন সহ জীবনের নানা আনন্দের দিনগুলি ক্রমশ মানবিক করে তুলছে সাধারণ মানুষদের। প্রচলিত পারিবারিক আনন্দের ধারা ভেঙে দিয়ে আধুনিক ও মানবিকতার নজির রেখে মাথা তুলে দাঁড়াচ্ছে সমাজ ব্যাবস্থা। মানুষের প্রকৃত শিক্ষার ব্যাবহার সঠিক ভাবে প্রয়োগের ফলে পাল্টে যাচ্ছে সামাজিক রীতিনীতি। জন্মদিন মানেই একরাশ আনন্দ। জন্মদিন মানেই একটা নতুন দিন, জীবনের একটা বছর পিছনে ফেলে আসা। আর সেই জন্মদিনেই যদি জীবনের সঠিক এবং মানবিক শিক্ষায় শিক্ষিত রুচির পরিচয় দেওয়া হয়, তাহলে সেই জন্মদিন হয়ে ওঠে আনন্দময়। মেয়ের জন্মদিনে সেই রকমই উদাহরণের ছাপ রাখলেন পশ্চিম বর্ধমান জেলার সিতারামপুরের বাসিন্দা মুখার্জি দম্পতি।


সিতারামপুরের বাসিন্দা মা শিউলি মুখার্জি আর বাবা ঝুলন মুখার্জি তাঁদের পাঁচ বছরের মেয়ে অরুনার (পৌষীর) জন্মদিনটাকে পালন করলেন একটু অন্য ভাবে। শীতের দুপুরে স্থানীয় রামকৃষ্ণ সারদা সংঘের প্রায় ৫০ জন দুস্থ ছাত্র ছাত্রীদের খাওয়ানোর ব্যাবস্থা করল মুখার্জি পরিবার। মেনুতে ছিলো ফ্রাইড রাইস, মটরপনির, রসগোল্লা। ছাত্র ছাত্রীরাও খুব আনন্দ সহকারে সেই খাবার গ্রহণ করলো । 

অরুনার পিতা ঝুলন মুখার্জি পেশায় স্কুল শিক্ষক। তিনি জানান, এই দুস্থ শিশুগুলি অনেক সময়ই আর্থিক অনটনের জন্য এই ধরনের সুস্বাদু খাবার খেতে পারে না । তাঁর কন্যা পৌষীও তাদের বয়সী, তাই পৌষীর জন্মদিন উপলক্ষে তার সমবয়সী ছাত্র ছাত্রিগুলোও যাতে আনন্দ উপভোগ করতে পারে তাই এই ব্যাবস্থাপনা। রীতিমত কেক কেটে মা শিউলি মেয়ের জন্মদিন পালন করলো সীতারামপুর রামকৃষ্ণ সারদা সংঘের এই সমস্ত কচি কাচাদের সাথে। শুধু খাবার প্রদান ই নয় তাদের পেন ও চকলেট প্রদান করেও সকলের কাছে প্রিয় হয়ে উঠল পৌষী। অন্যদিকে সিতারামপুর সারদা সংঘের সদস্য সমর মুখার্জি জানান, এই অভাবনীয় উদ্যগে এই সংঘে প্রথম। ইতিপূর্বে এই ধরনের উদ্যোগ অন্যান্য পরিবার নিলেও এদিনের ব্যাবস্থাপনা দেখে তাঁরাও মুগ্ধ।

0 Comments: