728x90 AdSpace

Latest News

Wednesday, 23 January 2019

বর্ধমানেই অনুষ্ঠিত রাজ্য সরকারের পর্যটন উৎসবে ঠাঁই পেল না ঐতিহাসিক জেলা বর্ধমান



ফোকাস বেঙ্গল ডেস্ক,বর্ধমানঃ শেষ হল তিনদিনের পর্যটন উৎসব। কিন্তু যেখানে উৎসব সেই বর্ধমান জেলার পর্যটনই ঠাঁই পেল না উৎসবে। যা নিয়ে উৎসবে আগত সাধারণ মানুষ রীতিমত অখুশীই হলেন। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর প্রচেষ্টায় রাজ্যের সমস্ত জেলার পর্যটনকেন্দ্রগুলিকে পর্যটন মানচিত্রে ঠাঁই দেবার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। সেই উদ্যোগেই জেলায় জেলায় ১০০ দিনের প্রকল্পে শুরু হয়েছে পর্যটন কেন্দ্রগুলিকে সাজিয়ে তোলার কাজ। পূর্ব বর্ধমান জেলাতেও একটানা ১৫দিন ধরে এই কাজ করা হয়েছে। কিন্তু তবুও পূর্ব বর্ধমান জেলায় অনুষ্ঠিত এই তিনদিনের পর্যটন উৎসবে ঠাঁই পেল না বর্ধমানের ঐতিহাসিক দ্রষ্টব্য স্থানের তালিকা। 

যদিও উৎসবের দায়িত্বে থাকা রাজ্য পর্যটন দপ্তরের আধিকারিক সঞ্জয় সামন্ত জানিয়েছেন, বর্ধমানে অনুষ্ঠিত হচ্ছে বলেই হয়ত দপ্তর থেকে বর্ধমানের দ্রষ্টব্য স্থানগুলির তালিকার বদলে অন্য জেলাগুলিকে প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে। অন্যদিকে, খোদ পর্যটন উৎসবের উদ্বোধক রাজ্যের প্রাণী সম্পদ বিকাশ দপ্তরের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ রীতিমত অস্বস্তিতে পড়েছেন এই ঘটনায়। তিনিও জানিয়েছেন, বর্ধমানের মানুষ বর্ধমানের কোথায় কি দেখার জিনিস রয়েছে তা জানেন না। এগুলিকে তুলে ধরা প্রয়োজন। একইসঙ্গে পর্যটন উৎসবে কেন বর্ধমানের দ্রষ্টব্যস্থানগুলির তালিকা নেই সে ব্যাপারেও ব্যবস্থা নেবার নির্দেশ দিয়ে যান। কিন্তু উৎসবের শেষ দিনেও সেই তালিকা হাতে পেলেন না সাধারণ মানুষ। 

বুধবার উৎসবের শেষ দিনে সঞ্জয় সামন্ত জানিয়েছেন, এদিন বিকাল পর্যন্ত সাকুল্যে ৯জন বেড়াতে যাবার বিষয়ে বুকিং করেছেন। উল্লেখ‌্য, এই পর্যটন উৎসবেই সরকারীভাবে কোথাও যাবার জন্য বুকিং করলে মোট খরচের ৩০ শতাংশ পর্যন্ত ছাড় দেবার ঘোষণা করা হয়। খোদ পূর্ব বর্ধমান জেলা পরিষদের অধ্যক্ষ দেবাশীষ নাগ নিজেই প্রথম বুকিং করেন। কিন্তু তারপরেও প্রত্যাশিতভাবে বুকিং হয়নি। এব্যাপারে সাধারণ মানুষের বক্তব্য, তেমন প্রচারই পায়নি এই উৎসব। যাঁরা ভ্রমণ পিপাসু তাঁদের কাছে এই উৎসবের বার্তাই পৌঁছায়নি। অনেকেই বলেছেন, যে সময়ে এই উৎসব করা হয়েছে তার পরিবর্তে ছুটির দিন করলে অনেকেই উৎসবে আসতে পারতেন। যদিও বুধবার ছুটির দিন তথা উৎসবের শেষ দিনে মানুষের ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতই।
বর্ধমানেই অনুষ্ঠিত রাজ্য সরকারের পর্যটন উৎসবে ঠাঁই পেল না ঐতিহাসিক জেলা বর্ধমান
  • Blogger Comments
  • Facebook Comments

0 comments:

Post a comment

Top