Headlines
Loading...
শুরু হল বর্ধমান পৌর উৎসব ২০১৮

শুরু হল বর্ধমান পৌর উৎসব ২০১৮



ফোকাস বেঙ্গল ডেস্ক,বর্ধমানঃ ফুটপাতের একজন সব্জী বিক্রেতার যে ক্ষমতা, দেশের সর্বোচ্চ ক্ষমতাধারী প্রধানমন্ত্রীরও সেই এক ক্ষমতা - অন্তত ভোটাধিকার প্রয়োগের ক্ষেত্রে। তাই দেশের সাধারণ মানুষই সবথেকে শক্তিশালী। যেভাবে পশ্চিমবঙ্গে ৩৫ বছরের শাসনের পর সিপিএমকে উৎখাত করেছে বাংলার মানুষ – তাদের সেই ক্ষমতাকে ধরে রাখতে হবে। কারণ এই ভোটাধিকারই সাধারণ মানুষের মোক্ষম অস্ত্র। শনিবার বর্ধমানের বাঁকার মাঠে ৬ষ্ঠ বর্ধমান পৌর উৎসব ২০১৮-র উদ্বোধন করতে এসে এভাবেই প্রকারান্তরে লোকসভা ভোটের প্রচার করে গেলেন রাজ্য বিধানসভার সদস্য বিধায়ক তথা বিশিষ্ট চলচ্চিত্রাভিনেতা চিরঞ্জিত চক্রবর্তী। 

এদিন উদ্বোধন অনুষ্ঠানে হাজির ছিলেন রাজ্যের প্রাণী সম্পদ বিকাশ দপ্তরের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ, বিধায়ক রবিরঞ্জন চট্টোপাধ্যায়, জেলা পুলিশ সুপার ভাস্কর মুখোপাধ্যায়, বর্ধমান পুরসভার প্রাক্তন কাউন্সিলার বৃন্দ সহ অন্যান্যরা। এদিন বক্তব্য রাখতে গিয়ে চিরঞ্জিত বলেন, একটা সময় গোটা রাজ্যে বারাসাতের নাম প্রতিদিন সংবাদে আসত। কোথাও না কোথাও মারদাঙ্গা, খুন খারাপির ঘটনা সামনে আসত। কিন্তু গত ৭বছরে তার আমূল পরিবর্তন হয়েছে। 

উল্লেখ্য, এবারে বর্ধমান পৌর উৎসবের থিম 'বর্ধমান জানে, অহিংসার মানে।' এই থিমকেই সামনে রেখে চিরঞ্জিত বলেন, তিনি এর আগেও বর্ধমানে এসেছেন। কিন্তু কখনও বর্ধমানে কোনো অহিংসার ঘটনা ঘটেনি। তিনি বলেন, রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের অনুপ্রেরণায় বাংলা জুড়ে উৎসব, ফেস্টিভ্যাল হচ্ছে। এই উৎসব হচ্ছে মিলনের উৎসব। তিনি বলেন, কিছু তৃতীয় লিঙ্গের নিন্দুক আছেন, তাঁরা এসব নিয়ে নানান মন্তব্য করেন। কিন্তু তাঁরা নিজেরা উৎসব করলে তাতে দোষ হয়না। নাম না করেই তিনি বিজেপি এবং সিপিএমকে খোঁচা দিয়ে বলেছেন উৎসব থাকবে। আরও বেশি করে হওয়া দরকার। এরফলে মানুষে মানুষে ছোটখাটো ভুলগুলো দূর করা যায়। 

0 Comments: