728x90 AdSpace

Latest News

Thursday, 29 November 2018

বর্ধমানে পথ দুর্ঘটনায় নিহত প্রাক্তন তৃণমূল ছাত্র নেতা, উত্তেজনা হাসপাতালে


ফোকাস বেঙ্গল ডেস্ক, বর্ধমানঃ বেসরকারি ইংরাজী মাধ্যম স্কুলে ছেলেকে ভর্তি করতে গিয়ে দুটি কন্টেনারের রেষারেষিতে মৃত্যু হল এক প্রাক্তন তৃণমূল ছাত্র নেতার। এই দুর্ঘটনায় গুরুতর জখম হয়েছেন ওই তৃণমূল নেতার সঙ্গী সাবির সেখও। দুজনেই একটি মোটর সাইকেলে ছিলেন। সাবির সেখ কে প্রথমে ভর্তি করা হয় বর্ধমানের অনাময় সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে কিন্তু অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাঁকে কলকাতায় স্থানান্তরিত করা হয়েছে। মৃত তৃণমূল নেতার নাম সেখ আইনুল (২৭)। বাড়ি রায়নার শ্যামসুন্দর এলাকায়। মর্মান্তিক এই দুর্ঘটনাটি ঘটে বর্ধমানের ২ নম্বর জাতীয় সড়কের উল্লাস মোড়ের কাছে। দুর্ঘটনার পর ঘাতক একটি কন্টেনার পালিয়ে গেলেও অন্য কন্টেনারটি ডিভাইডারে উঠে গিয়ে আটকে পড়ে। পুলিশ ওই ঘাতক কন্টেনারের চালককে আটক করেছে। দুটি কন্টেনারই কলকাতা থেকে আসানসোলের দিকে যাচ্ছিল।  

মৃত আইনুল তৃণমূল ছাত্র পরিষদের শ্যামসুন্দর কলেজের প্রাক্তন সাধারণ সম্পাদক। বর্তমানে তিনি পূর্ব বর্ধমানের শ্যামসন্দুর কলেজের কর্মী ছিলেন। দুর্ঘটনার পরে বেশ কিছুক্ষণ যানজটের সৃষ্টি হয় জাতীয় সড়কে। এদিকে, এই দুর্ঘটনার পরই আইনুল এবং তার সঙ্গীকে অনাময় সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে ভর্তি করার পর চিকিৎসক আইনুলকে মৃত ঘোষণা করেন। পাশাপাশি তাঁর সঙ্গী সাবিরের অবস্থার অবনতি হতে শুরু করলে তার যথাযথ চিকিৎসা শুরু না হওয়ায় দেখা দেয় উত্তেজনা। 

দুর্ঘটনার খবর পেয়েই অনাময়ে ছুটে আসেন তৃণমূল ছাত্র পরিষদ সহ তৃণমূলের নেতারাও। কিন্তু অনাময় থেকে কলকাতায় রেফার করার পরেও আইসিসিইউ সুবিধাযুক্ত কোনো অ্যাম্বুলেন্স না পাওয়ায় তৃণমূল নেতাদের ক্ষোভ চরমে ওঠে। উত্তেজিত তৃণমূল সমর্থকরা হাসপাতাল ভাঙচুর করার হুঁশিয়ারীও দিতে থাকেন। এই সময় কয়েকজন চিকিৎসক ও হাসপাতাল কর্মীকে নিগৃহিতও হতে হয় উত্তেজিত তৃণমূল সমর্থকদের হাতে। ঘটনার খবর পেয়েই হাসপাতালে ছুটে যান বর্ধমান জেলা পরিষদের সভাধিপতি শম্পা ধাড়া এবং সহকারী সভাধিপতি দেবু টুডুও। তাঁদের মধ্যস্থতায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।
বর্ধমানে পথ দুর্ঘটনায় নিহত প্রাক্তন তৃণমূল ছাত্র নেতা, উত্তেজনা হাসপাতালে
  • Title : বর্ধমানে পথ দুর্ঘটনায় নিহত প্রাক্তন তৃণমূল ছাত্র নেতা, উত্তেজনা হাসপাতালে
  • Posted by :
  • Date : November 29, 2018
  • Labels :
  • Blogger Comments
  • Facebook Comments

0 comments:

Post a comment

Top