728x90 AdSpace

Latest News

Tuesday, 6 November 2018

প্রায় ৯০ বছর ধরে বর্ধমান শহরের ইছলাবাদের ভট্টাচার্য বাড়িতে দক্ষিণাকালী রুপে পূজিতা হন মা শ্যামা



ফোকাস বেঙ্গল ডেস্ক,বর্ধমানঃ এক সময় ম্যানেনজাইটিসে আক্রান্ত হলে বাঁচার আশা করতেন না অনেকেই। বর্ধমান শহরের ৫নং ইছলাবাদের ক্ষুদিরামপল্লীর বাসিন্দা জ্ঞানরঞ্জন ভট্টাচার্যও সেই একই মারণ রোগে আক্রান্ত হয়েছিলেন প্রায় ৯০ বছর আগে। বর্ধমান শহরের তৎকালীন নামকরা ডাক্তাররাও জবাব দিয়েছিলেন জ্ঞান রঞ্জন বাবুকে। বাঁচার আশা ছেড়ে দিয়েছিলেন বাড়ির সকলেই।পরিবারের বর্তমান সদস্যদের বক্তব্য অনুযায়ী মুখের বাইরে জিভ বেড়িয়ে এসেছিল তাঁর। সেই সময় জ্ঞানরঞ্জনবাবুর বাবা শুকদেব শ্রীতীর্থ (ভট্টাচার্য) কে মা দক্ষিণাকালী স্বপ্নাদেশ দেন। শুকদেব শ্রীতীর্থ ছিলেন কালির উপাসক। মা দক্ষিণাকালী স্বপ্নাদেশে তাঁর পুজো করার আদেশ দেন শুকদেব শ্রীতীর্থকে। সেই থেকেই ক্ষুদিরামপল্লীর এই ভট্টাচার্য বাড়িতে মূর্তি পুজো শুরু হয়।  

জ্ঞানরঞ্জনবাবু মারা যাবার পর পুজোর দায়িত্ব তুলে নিয়েছেন তাঁর দুই ছেলে শিবানন্দ এবং দেবানন্দ ভট্টাচার্যরা। শিবানন্দবাবু জানিয়েছেন, দেবীর স্বপ্নাদেশ অনুসারে তাঁরাই কয়েকবছর অন্তর নিজেরাই মূর্তি গড়েন। কয়েকবছর অন্তর দেবীর বিসর্জন করা হয়। মূর্তি গড়ার ক্ষেত্রে বাইরের লোক থাকলেও মুখ্যত থাকতে হয় পরিবারের সদস্যদের। শিবানন্দবাবু জানিয়েছেন, এখনও দেবীর স্বপ্নাদেশ অনুসারেই দেবীর মূর্তি বিসর্জন এবং নতুন মূর্তি গড়া হয়। বর্তমানে ভট্টাচার্য বাড়ির এই পুজো পারিবারিক পুজো হলেও গোটা এলাকার পুজো হিসাবেই প্রসিদ্ধি পেয়েছে। তবে এই পুজোয় হয় মিষ্টি বলি। এবছরেও এই পুজোকে ঘিরে উন্মাদনা দেখা দিয়েছে। শিবানন্দবাবু জানিয়েছেন, পুজো উপলক্ষ্যে গোটা পাড়াসূদ্ধ লোককে ভোগ খাওয়ানোর রেওয়াজ চলে আসছে।
প্রায় ৯০ বছর ধরে বর্ধমান শহরের ইছলাবাদের ভট্টাচার্য বাড়িতে দক্ষিণাকালী রুপে পূজিতা হন মা শ্যামা
  • Title : প্রায় ৯০ বছর ধরে বর্ধমান শহরের ইছলাবাদের ভট্টাচার্য বাড়িতে দক্ষিণাকালী রুপে পূজিতা হন মা শ্যামা
  • Posted by :
  • Date : November 06, 2018
  • Labels :
  • Blogger Comments
  • Facebook Comments

0 comments:

Post a Comment

Top