728x90 AdSpace

Latest News

Monday, 9 July 2018

বর্ধমান হাসপাতাল চত্বরের নিরাপত্তা ও যানজট সমস্যা মোকাবিলায় ময়দানে খোদ পুলিশ সুপার


ফোকাস বেঙ্গল ডেস্ক,বর্ধমানঃ বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল সংলগ্ন এলাকাকে যানজট মুক্ত করে হাসপাতালের পরিবেশকে সুস্থ ও স্বাভাবিক করে গড়ে তুলতে এবার মাঠে নামলেন খোদ জেলা পুলিশ সুপার। সপ্তাহের প্রথম দিন সোমবার পুলিশ সুপার ভাস্কর মুখোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে ডিএসপি (ট্রাফিক) প্রদীপ মণ্ডল, ডিএসপি (হেড কোয়ার্টার) চন্দন ঘোষ প্রমুখরা বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল সহ বাইরের রাস্তাঘাট পরিদর্শন করলেন। পরে হাসপাতাল সুপার ডাঃ উৎপল দাঁয়ের সঙ্গে বৈঠক করে আগামী আগস্ট মাস থেকেই হাসপাতালের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন করতে একগুচ্ছ নতুন পরিকল্পনার কথা ঘোষণা করলেন।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, কয়েকমাস আগে হাসপাতালের সামনের রাস্তাকে যানজট মুক্ত করে জনসাধারণের সুবিধার্থে এক্মুখি করার প্রক্রিয়া লাগু করা হয়েছিল। এই নিয়ম যানবাহন চালকরা ঠিকঠাক মানছেন কিনা দেখবার জন্য সিভিক ও গ্রিন ভলান্টিয়ার নিয়োগ করা হয়েছিল। কিন্তু কিছুদিন যেতে না যেতেই হাসপাতালের সামনের রাস্তা ফের রোগীর পরিজন এবং সাধারন মানুষের কাছে বিভীষিকা হয়ে উঠতে থাকে। ৫ মিনিটের পথ পেরোতে সময় লেগে যাচ্ছিল ১৫ মিনিট। স্বাভাবিকভাবেই ক্ষোভের সৃষ্টি হচ্ছিল পথচারীদের মধ্যে। এমনকি যত্রতত্র পার্কিং-এর ফলে হাসপাতালের রোগীরা চরম সমস্যায় পরছিলেন। হাসপাতাল সংলগ্ন রাস্তার দুপাশে এ্যাম্বুলেন্স সহ একাধিক গাড়ি দাঁড়িয়ে থাকায় রীতিমত যানজটের শিকার হতে হচ্ছিল সাধারণ মানুষকে। এই পরিস্থিতি থেকে বেড়িয়ে আসতে হাসপাতালের রোগী কল্যাণ সমিতির পক্ষ থেকেও দফায় দফায় নানাবিধ আলোচনাও হয়। গত শুক্রবারও জেলাশাসক অনুরাগ শ্রীবাস্তবের উপস্থিতিতে রোগী কল্যাণ সমিতির বৈঠকে এব্যাপারে সদর্থক ভূমিকা নেবার বিষয়ে জোরদার আলোচনা হয়। আর তারপরেই জেলা পুলিশ সুপার হাসপাতালের যানজট মোকাবিলায় সোমবার বেশ কয়েকটি নির্দেশ দিয়ে গেলেন।

জেলা পুলিশ সুপার এদিন জানিয়েছেন, হাসপাতালের মোট ২৯২জন নিরাপত্তারক্ষীর মধ্যে ৮৪জন রয়েছেন কমাণ্ডার গ্রুপ নামে একটি ঠিকাদার সংস্থার অধীনে। হাসপাতালের অভ্যন্তরে চিকিৎসকদের সঙ্গে রোগীদের প্রায়শই সংঘর্ষ, মারপিটের ঘটনায় এবার থেকে এই ৮৪জন নিরাপত্তারক্ষীর হাতেই বিশেষ দায়িত্ব দেবার কথা জানিয়েছেন তিনি। এব্যাপারে দুদফায় জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে ওই ৮৪জন নিরাপত্তারক্ষীকে বিশেষ প্রশিক্ষণ দেবার কথা ঘোষণা করেছেন তিনি। অন্যদিকে, হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পের পুলিশকে তাদের সঙ্গে সহযোগিতা করে কাজ করার নির্দেশ দিয়েছেন। একইসঙ্গে হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পের পুলিশকে হাসপাতালের বাইরের শ্যামসায়রের রাস্তায় যানজট মোকাবিলায় কড়া পদক্ষেপ নেবার নির্দেশ দিয়েছেন। পুলিশ সুপার জানিয়েছেন, হাসপাতালের লাগোয়া শ্যামসায়রের রাস্তায় কোনোরকম পার্কিং চলবে না। মোটর সাইকেলও পার্কিং করা যাবেনা। পার্কিং করলেই পুলিশ তা বাজেয়াপ্ত করবে।

তিনি জানিয়েছেন, হাসপাতালের জরুরী বিভাগের গেট সংলগ্ন যে এ্যাম্বুলেন্স পার্কিং এলাকা রয়েছে তা গেট থেকে ৫০ ফুট দূরে সরিয়ে নিয়ে যেতে হবে এবং এ্যাম্বুলেন্সগুলিকে রাস্তা ছেড়ে সারিবদ্ধভাবে দাঁড়ানোর নির্দেশ দিয়েছেন। হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, আগামী আগষ্ট মাস থেকেই এই ব্যবস্থা
চালু হতে চলেছে। এছাড়াও হাসপাতালের ১০০ মিটারের মধ্যে তামাকজাত দ্রব্য বিক্রি নিষিদ্ধ করা, নিরাপত্তারক্ষীদের পরিচয়পত্র ঝোলানো ইত্যাদি বাধ্যতামূলক করার সিদ্ধান্তও নেওয়া হয়েছে।
বর্ধমান হাসপাতাল চত্বরের নিরাপত্তা ও যানজট সমস্যা মোকাবিলায় ময়দানে খোদ পুলিশ সুপার
  • Blogger Comments
  • Facebook Comments

0 comments:

Post a comment

Top