728x90 AdSpace

Latest News

Monday, 14 May 2018

পূর্ব বর্ধমান জেলা জুড়ে সকাল থেকেই জায়গায় জায়গায় শাসকদলের তাণ্ডব, সংঘর্ষ


ফোকাস বেঙ্গল নিউজ ডেস্কঃ ত্রিস্তর পঞ্চায়েত নির্বাচন ঘিরে পূর্ব বর্ধমান জেলায় সোমবার সকাল থেকেই ভোটদাতাদের মধ্যে ছিল তুমুল উন্মাদনা।জেলার বিভিন্ন জায়গায় দেখা গেছে ভোর থেকেই বুথে বুথে লম্বা লাইন। কিন্তু বেলা বাড়তেই বিভিন্ন প্রান্ত থেকে খবর আসতে শুরু করে বুথ দখলের। জেলার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ঘনঘন ফোনে অভিযোগ আসতে থাকে শাসকদলের বিরুদ্ধে। বুথ দখলের পাশাপাশি বিরোধীদের আক্রান্ত হওয়ার খবরও আসতে থাকে।

এদিন বেলা বাড়তেই প্রথম সংঘর্ষের খবর আসে মেমারীর ব্রাহ্মনপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বুথ থেকে। তৃণমূল বিজেপি সংঘর্ষে আহত হন সেখ সুরমান নামে এক তৃণমুল কর্মী। এলাকায় তীব্র উত্তেজনা দেখা দেয়। তৃণমূলের অভিযোগের তীর বিজেপির দিকে। এদিন সকাল ৯টা বাজতেই শক্তিগড়ে উত্তর বাজার এলাকায় বুথ দখল করার অভিযোগ ওঠে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। এরপর ফের উত্তেজনা দেখা দেয় মেমারীতে। মেমারীর দেউলগ্রামে ১২৩ ও ১২৪ নম্বর বুথে শাসকদলের বিরুদ্ধে বুথ দখলের অভিযোগ তোলে সিপিএম। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতির সামাল দেয়। যদিও অভিযোগ অস্বীকার করে তৃণমূল।গলসীর তারানগর, উচ্চগ্রামে তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে ব্যাপক বোমাবাজি করে বুথ দখলের অভিযোগ উঠেছে।


ভাতারের মুরাতিপুরে সিপিএম সমর্থকদের ওপর তৃণমুলের হামলার অভিযোগ ওঠে। অভিযোগ অস্বীকার করে তৃণমুল। রায়নার ধারানে সিপিএমের হাতে জখম হন পলাশন গ্রাম পঞ্চায়েতের তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী জাকির হোসেন। তৃণমূলের অভিযোগ, সিপিএম তাদের উপর হামলা চালায়। পাল্টা একই অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে সিপিএমের। ভাতাড়ের বামুনারা পঞ্চায়েতের কংগ্রেসের ১১৪ নং বুথের প্রার্থী সম্পাতি হাটি আক্রান্তে হন বিজেপি সমর্থকদের হাতে। জখম সম্পাতি হাটিকে ভর্তি করা হয়েছে বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। জামালপুরের চাঁদপুর স্কুলে ৪টি বাইক পুড়িয়ে দেওয়ার পাশাপাশি সাধারণ ভোটারদের মারধোর করার অভিযোগ ওঠে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। মেমারীর বড় পলাশনে নির্দল প্রার্থীকে মেরে বুথ থেকে বার করে দেওয়ার অভিযোগ ওঠে তৃনমূলের বিরুদ্ধে।

অন্যদিকে গলসি থানার ভুঁড়ি পঞ্চায়েতের মোহনপুর গ্রামে নির্দল প্রার্থী মিতা রায় এবং তার স্বামী সুব্রত রায়কে মারধর করার অভিযোগ ওঠে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। অভিযোগের তীর স্থানীয় তৃণমূল কংগ্রেসের পঞ্চায়েত প্রধান সুবোধ ঘোষের বিরুদ্ধে। অভিযোগকারিরা জানিয়েছেন, ব্যাপক ছাপ্পা ভোট দিয়েছে তৃণমূলের দুষ্কৃতীরা। প্রতিবাদ করতে গেলে তৃনমূলের গুন্ডা বাহিনী তাঁদের বেধড়ক মারধর করে। 

এদিকে ভোটের সন্ত্রাসের পাশাপাশি সোমবার ভোটকে ঘিরে শান্তির চিত্রও দেখা গেছে জেলার বিভিন্ন প্রান্তে। মেমারীর আমোদপুরে ভোটদাতাদের প্রতিনিধিস্বরুপ  মাটিতে  সারিবদ্ধ ইট রেখে যে যার নিজের কাজ সারলেন। লাইন অনুযায়ী ডাক আসলেই শুধু ভোট দিয়ে চলে এসেছেন ভোটদাতারা ।  ভোটের অভিনব এই চিত্র দেখা গেল মেমারীর আমোদপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে। উৎসবের মেজাজে ভোট দিলেন পূর্ব বর্ধমানের কাটোয়া বাদে কালনা, বর্ধমান সদর উত্তর ও বর্ধমান সদর দক্ষিণ মহকুমার সাধারণ মানুষ। রোদ ও ভীড় এড়াতে ভোর থেকেই বাড়ির পুরুষরা মহিলারা লাইনে দাড়িয়ে ভোট দিয়েছেন।  যদিও বেলা বাড়তেই বুথে বুথে দীর্ঘ লাইন দেখা গেছে জেলার বিভিন্ন প্রান্তে। জেলার জামালপুর থেকে রায়না, খণ্ডঘোষ, মেমারী ১ ও ২, ভাতার বর্ধমান সদর ১ ও ২নং ব্লক, গলসী, আউশগ্রাম সর্বত্রই ছিল একই চিত্র।
পূর্ব বর্ধমান জেলা জুড়ে সকাল থেকেই জায়গায় জায়গায় শাসকদলের তাণ্ডব, সংঘর্ষ
  • Blogger Comments
  • Facebook Comments

0 comments:

Post a comment

Top