728x90 AdSpace

Latest News

Monday, 26 March 2018

পূর্ব বর্ধমান জেলায় অনাময় সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে চালু হল ট্রমা কেয়ার সেণ্টার


ফোকাস বেঙ্গল ডেস্ক,পূর্ব বর্ধমান: বর্ধমানের  অনাময় হাসপাতালে চালু হল লেবেল-টু ট্রমা কেয়ার সেণ্টার। সোমবার দক্ষিণ ২৪ পরগণার পৈলান থেকে রিমোর্ট কন্ট্রোলের সাহায্যে পূর্ব বর্ধমান জেলার এই ট্রমা কেয়ার সেণ্টারের উদ্বোধন করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে এদিন বর্ধমান ট্রমা কেয়ার সেণ্টারের ফলক উন্মোচন করেন বর্ধমান মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. সুকুমার বসাক।

এদিন সুকুমার বসাক জানিয়েছেন, কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারের যৌথ আর্থিক সাহায্যে প্রায় সাড়ে ৬ কোটি টাকা ব্যয়ে এই ট্রমা সেন্টার চালু করা হল। এখানে ২৪ ঘণ্টা পরিষেবা দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে  ২০টি বেড বিশিষ্ট এই ট্রমা সেন্টার চালু করা হলেও আগামী দিনে এই ট্রমা কেয়ার সেণ্টারকে লেবেল ওয়ান সেণ্টার হিসাবে গড়ে তোলার উদ্যোগ নেওয়া হবে। তিনি জানান, খুব শীঘ্রই এখানে নিয়ে আসা হবে পোর্টেবল ভেন্টিলেটর এবং সি-এক্সরে মেশিন।


এদিন আনাময় হাসপাতালে ট্রমা কেয়ার সেণ্টারের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে হাজির ছিলেন বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সুপার ডা. উৎপল দাঁ, ডেপুটি সুপার ডা. অমিতাভ সাহা এবং মুখ্য স্বাস্থ্যাধিকারিক ডা. প্রণব রায়। 

ডেপুটি সুপার ডা. অমিতাভ সাহা জানিয়েছেন, এই ট্রমা সেন্টারে সার্জারি, অ্যানাসথেসিয়া এবং অর্থোপেডিকের ৩টি ইউনিট থাকছে। ডাকামাত্র পাওয়া যাবে নিউরো সার্জারির ইউনিটকেও। তিনি আরও জানান,ট্রমা কেয়ার সেণ্টারের জন্য ১০জনের একটি ডাক্তারদের কমিটি গড়া হয়েছে। তাদের সাহায্য করার জন্য থাকবেন ১৯জন নার্সিং স্টাফ।  এছাড়াও সর্বক্ষণের জন্য নিয়োগ করা হচ্ছে ২৫জন সাফাই কর্মী এবং ২৪জন নিরাপত্তরক্ষীকে। 
 
এদিন ডেপুটি সুপার জানিয়েছেন, বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গড়ে প্রতিদিন প্রায়  ৪০জন  ট্রমায় আক্রান্ত রোগী ভর্তি হন। অনাময়ে  ট্রমা কেয়ার হওয়ায় হাসপাতালের চাপ কিছুটা হলেও কমবে। উল্লেখ্য,এদিনই বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে ৯জন রোগীকে নিয়ে আসা হয়েছে এই ট্রমা কেয়ার সেণ্টারে। 
                                                                                                        ছবি - সুরজ প্রসাদ 


পূর্ব বর্ধমান জেলায় অনাময় সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে চালু হল ট্রমা কেয়ার সেণ্টার
  • Blogger Comments
  • Facebook Comments

0 comments:

Post a comment

Top