728x90 AdSpace

Latest News

Wednesday, 4 September 2019

উৎসবের দিনগুলোতে অসহায় মানুষগুলোর মুখে হাসি ফোটাতে পাল্লা রোডে বিনা পয়সার বাজার চালু


ফোকাস বেঙ্গল ডেস্ক,বর্ধমান: সামনেই দুর্গাপুজো।বাঙালীর প্রাণের উৎসব। আর এই উৎসবকেই ঘিরে ছোট বড়ো সকলের উন্মাদনার শেষ নেই। কিন্তু এতো আনন্দের মাঝেই কিছু মানুষকে সেই সারা বছরের নিরানন্দ নিয়েই কাটিয়ে দিতে হয় উৎসবমুখর এই দিনগুলো। যখন সবাই নতুন জামাকাপড় পড়ে বাবা,মা,পরিবারের সকলের সাথে ঠাকুর দেখতে বেরোয় মণ্ডপে মণ্ডপে, ঠিক সেই সময় সকলের অলক্ষে ছেঁড়া, পুরোনো জামা পড়েই জুল জুল চোখে তাদের দিকে তাকিয়ে থাকে কিছু চোখ। তারা নিজেদের মতো করে আনন্দ ভাগ করে নেয় বাস্তব কে মেনে নিয়েই। 

কিন্তু না, এদের কথা ভাববার মানুষ আজও রয়েছে এই সমাজে।আর এই মানুষগুলোর কথা ভেবেই মেমারীর পাল্লারোডের পল্লীমঙ্গল সমিতির উদ্যোগে তাদের ক্লাবঘরেই চালু করা হলো বিনা পয়সার বাজার।কোনো আনুষ্ঠানিকতা ছাড়াও রবিবার থেকে চালু হয়েছে এই বিনা পয়সার বাজার। ক্লাবের উদ্যোক্তা সন্দীপন সরকার জানিয়েছে্ন, দীর্ঘদিন ধরেই তাঁরা সামাজিক বিভিন্ন কাজ করে চলেছেন। সম্প্রতি বহরমপুরে এমনি একটি উদ্যোগের খবর দেখার পর এই বিনা পয়সার বাজারের বিষয়টি চালু করার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেন ক্লাবের সকল সদস্য। আর এরপরই তাঁরা কাজ শুরু করেন। এখনও সেভাবে তাঁরা বাজার বসানোর জায়গা পাননি। তাই আপাতত ক্লাবঘরেই চালু করে দিয়েছেন এই বিনা পয়সার বাজার।

 
কি থাকছে এই বাজারে? সন্দীপন বাবু জানিয়েছেন, এলাকার মানুষের কাছ থেকে তাঁরা সংগ্রহ করছেন ব্যবহার করা বিভিন্ন জামাকাপড়। তিনি জানিয়েছেন, অনেক অবস্থাপন্ন মানুষ ছেলেমেয়েদের জন্য একাধিক জামাকাপড় কেনেন। কেউ কেউ দু-একবার পড়ার পর আর তা আর ব্যবহার করে না। অনেকের আবার জামাকাপড় ভাল থাকলেও ছোট হয়ে যাওয়ায় ব্যবহারের অযোগ্য হয়ে পড়ে। তাঁরা সেগুলি সংগ্রহ করছেন। এরপর সেগুলিকে রীতিমত কাচাকাচির পর ইস্ত্রি করে তার চেহারায় নতুনত্ব আনার চেষ্টা করছেন। এবার সেগুলি বিভিন্ন মাপ অনুযায়ী তাকে তাকে সাজিয়ে রেখে দিচ্ছেন। আর যাঁরা নতুন জামাকাপড় কিনতে পারছেন না - তাঁরা আসছেন এই বিনা পয়সার বাজারে। বেছে নিচ্ছেন তাঁদের পছন্দের পোশাক। না, এর জন্য কোনো অর্থই দিতে হচ্ছে না তাঁদের। এমনকি ক্লাবঘরের একধারে তৈরী করা হয়েছে একটি ড্রেসিং রুম। সেখানে পড়েও দেখে নিতে পারছেন পোশাক।ছোট থেকে প্রাপ্ত বয়স্ক সকলের জন্যই থাকছে সংগ্রহ।

সন্দীপনবাবু জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে প্রতি রবিবার সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত এই বিনা পয়সার বাজার খোলা থাকছে। তাঁরা আরও বেশি করে এই ধরণের জামা কাপড় সংগ্রহের চেষ্টায় রয়েছেন। সামনেই উৎসবের মরসুম। অনেকেই নতুন নতুন জামাকাপড় কিনে বাবা-মার সঙ্গে ঘুরবে। কিন্তু অনেকেই জুলজুল চোখে তাকিয়ে থাকবে তাঁদের দিকে - নিজের উদুম গা নিয়ে। এবার তাদের মুখেই হাসি ফোটাতে এগিয়ে এসেছে পাল্লারোডের পল্লীমঙ্গল সমিতি।
উৎসবের দিনগুলোতে অসহায় মানুষগুলোর মুখে হাসি ফোটাতে পাল্লা রোডে বিনা পয়সার বাজার চালু
  • Blogger Comments
  • Facebook Comments

0 comments:

Post a Comment

Top