728x90 AdSpace

Latest News

Friday, 13 September 2019

৭৮ তম বর্ষে পাল্লা পল্লীমঙ্গল সমিতির পুজোর ভাবনা 'পুজোর গন্ধে মাটির টানে, খুশির বন্যা উমার আগমনে'



ফোকাস বেঙ্গল ডেস্ক,বর্ধমান: কংক্রীটের জঙ্গলে হারিয়ে যাচ্ছে শরতের কাশ ফুল, বৃক্ষ ছেদনের প্রকোপে মানুষ ভুলতে বসেছে শিউলির গন্ধ। ধোঁয়ায় ঢেকেছে শরতের মেঘ, সাবেকিয়ানা হোক বা থিম - সবার আড়ালে জীবনের ব্যস্ততায় বিলুপ্তপ্রায় আগমনীর আমেজ। পুজো মানে শুধু কি প্যান্ডেল, হপিং আর খাওয়া দাওয়া! আষাঢ়ে কাঠামোতে মাটি লাগানো, অপেক্ষার দিন গোনা শুরু, দিন পেরিয়ে শরতের কাশের দোলায় শিউলির গন্ধ মেখে পুকুরের পদ্মকে সাক্ষি রেখে উমার আগমন, আরো কতো আবেগ - এসবই যেন আজ সেকেলে। 

আর এই হারিয়ে যেতে বসা নানান আবেগ, অনুভূতিগুলোকে এক ছাতার তলায় নিয়ে এসে আমাদের শৈশব থেকে যৌবন কে ফের ফিরিয়ে দেবার ভাবনা নিয়ে ৭৮ তম বর্ষে এবছর পাল্লা পল্লীমঙ্গল সমিতির দূর্গা পুজোর থিম "পুজোর গন্ধে মাটির টানে খুশির বন্যা উমার আগমনে।" আষাড় শ্রাবণে উমার আসার খুশির অপেক্ষা থেকে কার্ত্তিক অগ্রাহয়ণে উমার চলে যাওয়ার বিষাদের মেলবন্ধন ফুটে উঠবে মন্ডপে, অস্ত্রবিহীন মার্তৃমূর্তি বার্তা দেবে বিশ্ব শান্তির।

সমিতির সম্পাদক সন্দীপন মুখার্জি জানিয়েছেন, দর্শনার্থীরা মন্ডপে প্রবেশ করলে দেখতে পাবেন ছোট বেলার হারিয়ে যাওয়া পুজোর পরিবেশ, যা এখনকার অনেক বাচ্ছাই পায়না। অস্ত্রবিহীন মার্তৃমূর্তি বার্তা দিচ্ছে বিশ্ব শান্তির, অস্ত্র সমর্পিত মায়ের পায়ের নিচে।পটচিত্রে ফুটে উঠবে উন্নয়নের জোয়ারে চারপাশের পরিবেশ এর বর্তমান অবস্থা।থিম ভাবনায় বোঝানো হবে - হয়ত অচিরেই হারিয়ে ফেলব এই কাশ, শিউলি, পদ্মের শরত কে। সন্দীপন বাবু জানিয়েছেন, সেরার সেরা হওয়ার রেশারেশি না, শান্তিই হোক পাথেয়। বেচে থাকুক ঐতিহ্য,আবেগ - এই বার্তাই এবারের পল্লীমঙ্গল সমিতির পুজোয়। 

নষ্ট হয়ে যাওয়া ফ্যানের ব্লেড, এ.সি- র পাইপ, ফুলঝাড়ু, বাঁশ ঝাড়ের শুকিয়ে যাওয়া বাঁশ, কাঁসার থালা, পোড়া মাটির পদ্ম, প্লাইউড এই সমস্ত উপকরণ দিয়ে তৈরী হচ্ছে পল্লীমঙ্গলের মণ্ডপ। সন্দীপন বাবু জানিয়েছেন, এবারের পুজোর বাজেট আনুমানিক ১২ লক্ষ টাকা। আরও চমক রয়েছে এই পুজোয়।নতুন শিল্পিদের তুলে আনতে কম বয়সি যুবকদের সুযোগ দেওয়া হয়েছে সমগ্র থিম ভাবনা থেকে মন্ডপ তৈরির কাজের। মাত্র ২৫ বছরের শিল্পী অশোক মন্ডল এর তত্ত্বাবধানে গড়ে উঠবে প্রতিমা থেকে অন্দর আলোক সজ্জার ডিজাইন।

সন্দীপন মুখার্জি জানিয়েছেন, পুজো কে কেন্দ্র করে নানান সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। সমাজ সচেতনতার প্রচার ও সেবা মূলক কর্মসূচির সাথে ছৌ, রায়বেশে, ঘোড়া নাচ, রণপার মতন বাংলার ঐতিহ্যশালি নাচের অনুষ্ঠান এবছর পল্লী মঙ্গল সমিতির পুজোর অন্যতম আকর্ষণ। 

পথ নির্দেশ: ট্রেনে হাওড়া বর্ধমান কর্ড লাইনে পাল্লা রোড স্টেশনে নেমে ৫মিনিট। গাড়িতে জাতীয় সড়ক - ২ ধরে  পালসীট টোল প্লাজার কাছের পাল্লা রোড ফোর পয়েন্ট থেকে ৫মিনিট, পল্লীমঙ্গল সমিতির ফুটবল মাঠ।
৭৮ তম বর্ষে পাল্লা পল্লীমঙ্গল সমিতির পুজোর ভাবনা 'পুজোর গন্ধে মাটির টানে, খুশির বন্যা উমার আগমনে'
  • Blogger Comments
  • Facebook Comments

0 comments:

Post a Comment

Top