728x90 AdSpace

Latest News

Friday, 19 July 2019

বৃষ্টির দেখা নেই, জলাধারেও নেই জল - চাষে তীব্র জল সংকটের সম্ভাবনা দক্ষিণবঙ্গের ৫ জেলায়


ফোকাস বেঙ্গল ডেস্ক,বর্ধমানঃ বর্ষার খরিফ চাষে চাষীদের জল পাওয়া নিয়ে ঘোরতর অনিশ্চয়তা দেখা দিল পূর্ব বর্ধমান, পশ্চিম বর্ধমান, হুগলী, বাঁকুড়া ও হাওড়ার জেলার চাষীদের। চলতি বর্ষা মরশুমে অন্যান্য বছরের তুলনায় ৪০ শতাংশ বৃষ্টিপাত কম হওয়ায় এবার খরিফ চাষে ব্যাপক জলসংকটের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। পাশাপাশি মাইথন এবং পাঞ্চেত জলাধারেও প্রয়োজনীয় খরিফ চাষের জন্য পর্যাপ্ত জল না থাকায় শেষ পর্যন্ত পরিস্থিতি কোন দিকে গড়ায় তা নিয়েই রীতিমত ভেবে আকুল চাষী থেকে প্রশাসনিক আধিকারিকরা।

অন্যান্য বছরের মত এবারেও এই ৫ জেলার দামোদরের জলের ওপর নির্ভরশীল এলাকায় চাষের জল সরবরাহ নিয়ে শুক্রবার ডিভিশনাল কমিশনার বরুণ রায়ের নেতৃত্বে এই ৫ জেলার আধিকারিকদের নিয়ে উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক অনুষ্ঠিত হল বর্ধমান সার্কিট হাউসে। হাজির ছিলেন ডিভিসির প্রতিনিধিরাও। বৈঠকের পর ডিভিশনাল কমিশনার বরুণ রায় জানিয়েছেন, যেহেতু এবারে প্রয়োজনের তুলনায় প্রায় ৪০ শতাংশ বৃষ্টিপাত কম হয়েছে তাই জল সরবরাহের ক্ষেত্রে বিলম্বিত হতে পারে। তিনি জানিয়েছেন, মাইথন এবং পাঞ্চেত জলাধারে যে জল মজুদ রয়েছে তাতে ২৫ জুলাই থেকে জল ছাড়ার কথা থাকলেও তাঁরা ওইদিন ফের একটি রিভিউ বৈঠক করবেন। এর মধ্যে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ কি হয় তা দেখার পরই জল ছাড়ার ব্যাপারে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। সেক্ষেত্রে ২৫ জুলাই সন্ধ্যের পর জল ছাড়া হলে ধাপে ধাপে তা এই জেলায় এসে পৌঁছাবে ৩০ জুলাই নাগাদ।


এদিন এই বৈঠকে হাজির ছিলেন পূর্ব বর্ধমানের জেলাশাসক বিজয় ভারতী, জেলা সভাধিপতি শম্পা ধারা, সহকারি সভাধিপতি দেবু টুডু, জেলা কৃষি দপ্তরে যুগ্ম কৃষি আধিকারিক জগন্নাথ চট্টোপাধ্যায় সহ জেলা আধিকারিকরাও। জগন্নাথবাবু এদিন জানিয়েছেন, এখনও গোটা জেলায় যে বৃষ্টিপাত হয়েছে তাতে সমস্যা রয়েছে। কোথাও কোথাও জলের অভাবে বীজতলা শুকিয়ে যাবার প্রবণতা দেখা দিচ্ছে। দু-একদিনের মধ্যে স্বাভাবিক বৃষ্টিপাত শুরু হলে এই সমস্যা কেটে যাবার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে যদি বৃষ্টি না হয়, সেক্ষেত্রে খরা পরিস্থিতিও সৃষ্টি হতে পারে। আর তাই চাষীভাইদের ফসল বীমা করানোর ওপর তাঁরা জোড় দিচ্ছেন।

জগন্নাথবাবু জানিয়েছেন, অন্যান্য বছরের জুলাই মাসের মাঝামাঝি সময় যেখানে ৩৯ হাজার হেক্টর এলাকায় বীজতলার কাজ হয়ে যায় এবারে গোটা জেলায় সেটা হয়েছে ৩৩ -৩৪ হাজার হেক্টর এলাকায়। অন‌্যান্য বছরে যেখানে ২০ হাজার হেক্টর এলাকায় চাষ শুরু হয়ে যায়, জলের অভাবে সেখানে এখনও পর্যন্ত হয়েছে (জুলাই মাসের মাঝামাঝি) প্রায় ৮ হাজার হেক্টর এলাকায়। উল্লেখ্য, গোটা পূর্ব বর্ধমান জেলায় মোট ধান চাষের এলাকা রয়েছে ৩ লক্ষ ৮০ হাজার হেক্টর। এর মধ্যে গড়ে চাষ হয় ৩ লক্ষ ৬০ হাজার হেক্টর। তার মধ্যে ডিভিসি সেচসেবিত এলাকা রয়েছে ২ লক্ষ ৫ হাজার হেক্টর। এছাড়াও ১ লক্ষ ৩৫ হাজার হেক্টর এলাকা চাষ ডিপ টিউবওয়েল, নদী থেকে জল উত্তোলিতের মাধ্যমে কিংবা অন্য কোনোভাবে। তবে তিনি জানিয়েছেন,আগষ্ট মাসের মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত খরিফ চাষের স্বাভাবিক সময় রয়েছে।
বৃষ্টির দেখা নেই, জলাধারেও নেই জল - চাষে তীব্র জল সংকটের সম্ভাবনা দক্ষিণবঙ্গের ৫ জেলায়
  • Blogger Comments
  • Facebook Comments

0 comments:

Post a Comment

Top