728x90 AdSpace

Latest News

Sunday, 14 July 2019

বর্ধমানের খণ্ডঘোষের সরঙ্গা স্কুলের অনিয়ম নিয়ে চাপানউতোর তুঙ্গে


ফোকাস বেঙ্গল ডেস্ক,বর্ধমানঃ পূর্ব বর্ধমানের খণ্ডঘোষ ব্লকের সরঙ্গা উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের দুনীর্তি সহ স্কুলের একাধিক অনিয়ম নিয়ে স্কুলের অভিভাবক তথা গ্রামবাসীদের সরব হওয়া এবং এই বিষয়ে সোস্যাল মিডিয়ায় প্রচারকে ঘিরে পাল্টা উত্তেজনা ছড়ালো। এই ঘটনায় স্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মুন্সী সিরাজুল ইসলাম সহ অন্যান্য শিক্ষকরা জেলাশাসকের কাছে গ্রামের বাসিন্দা তথা এই স্কুলের প্রাক্তন ছাত্র রামনারায়ণ দে-র বিরুদ্ধে লিখিত ভাবে নিরাপত্তাহীনতার অভিযোগ করেছেন।

ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক এবং স্কুল পরিচালন সমিতির সভাপতি প্রণব তা অভিযোগে জানিয়েছেন, লোকসভা নির্বাচনের পর থেকেই এলাকার বাসিন্দা তথা প্রাক্তন ছাত্র রামনারায়ণ দে সোস্যাল মিডিয়ায় স্কুলের কিছু শিক্ষক-শিক্ষিকা, ভারপ্রাপ্ত পরিচালন সমিতির বিরুদ্ধে কুত্সা রটাচ্ছেন। এর ফলে স্কুলের স্বাভাবিক পঠন পাঠনের পরিবেশ বিঘ্নিত হচ্ছে। এমনকি নির্দিষ্ট কয়েকজন শিক্ষকের নামে মিথ্যা অভিযোগ তুলে তা সোস্যাল মিডিয়ায় পোষ্ট করায় তাঁরা নিরাপত্তা হীনতায় ভুগছেন।

এদিকে, এব্যাপারে স্কুলের ভারপ্রাপ্ত টিচার ইনচার্জ মুন্সী সিরাজুল ইসলামকে ফোনে পাওয়া যায়নি। অন্য স্কুলের শিক্ষক হারুন অল রসিদ জানিয়েছেন, রামনারায়ণ দে স্কুলের অত্যন্ত ভাল ও মেধাবী প্রাক্তন ছাত্র। সম্ভবত কোনো প্ররোচনায় পড়েই সে এই সব কাজ করছে। এর সঙ্গে স্কুলের দু-একজন স্টাফও জড়িতে রয়েছে। তিনি জানিয়েছেন, স্কুলের কোনো অনিয়ম হলে তা নিয়ে আলোচনার পথ খোলা রয়েছে। কিন্তু তা না করে সোস্যাল মিডিয়ায় কিছু কুত্সা রটানোয় তাঁরা সত্যিই নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। হারুন অল রসিদ জানিয়েছেন, তাঁরা চাননা ওই মেধাবী ছাত্রের কোনো ক্ষতি হোক। কিন্তু তাঁরা চান ওই ছাত্রের কোনো বক্তব্য বা অভিযোগ থাকলে সে সরাসরিই তা নিয়ে আলোচনা করুক।

এদিকে, যাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ সেই রামনারায়ণ দে জানিয়েছেন, গত কয়েকবছর ধরেই স্কুলের আর্থিক অনিয়ম, স্কুলের ভেতর মদ খাওয়া, মিথ্যা হিসাব পেশ করে টাকা তোলা সহ একাধিক বিষয় নিয়ে তাঁরা স্কুলের ভারপ্রাপ্ত টিচার ইনচার্জকে লিখিতভাবে জানিয়ে ছিলেন। কিন্তু তিনি ৩ দিনের মধ্যে উত্তর দেবার প্রতিশ্রুতি দিলেও আজও কোনো উত্তর দেননি। উল্টে তিনি জানিয়েছেন, তিনি কোনো উত্তর দেবেন না। যা করার করে নিতে পারেন। রামনারায়ণবাবু জানিয়েছেন, এরপরই তাঁরা সমগ্র বিষয়টি জেলা স্কুল পরিদর্শককে জানান। তথ্য জানার অধিকার আইনে তাঁরা জানতেও চেয়েছেন। জেলাশাসকের কাছে তাঁর বিরুদ্ধে দায়ের করা অভিযোগ সম্পর্কে তিনি জানিয়েছেন, গ্রামের মানুষ স্কুলের ভাল চেয়ে একত্রিত হয়ে আলোচনা করেছেন। তাঁরা চান স্কুল ভালভাবে চলুক। কিন্তু তা না করে কোনো শিক্ষক যদি তৃণমূলের পার্টি অফিসে গিয়ে বসে থাকেন তাহলে তা কখনই সমর্থনযোগ্য হতে পারে না। তিনি জানিয়েছেন, তাঁরাও পাল্টা জেলাশাসক তথা জেলা প্রশাসনের কাছে এর সুবিচারের জন্য লিখিতভাবে আবেদন জানাতে চলেছেন।
বর্ধমানের খণ্ডঘোষের সরঙ্গা স্কুলের অনিয়ম নিয়ে চাপানউতোর তুঙ্গে
  • Blogger Comments
  • Facebook Comments

0 comments:

Post a Comment

Top