728x90 AdSpace

Latest News

Sunday, 2 June 2019

অবশেষে কালনায় পুলিশের জালে সিরিয়াল কিলার!



ফোকাস বেঙ্গল ডেস্ক,কালনাঃ লোহার রড আর চেনের সাহায্যে একের পর এক মহিলা খুনের ঘটনায় জড়িত সন্দেহে অবশেষে এক যুবককে আটক করলো কালনা থানার পুলিশ। বিগত বেশ কয়েক বছর ধরে চলতে থাকা এই সিরিয়াল কিলার কার্যত পুলিশের রাতের ঘুম কেড়ে নিয়েছিল। শেষমেশ পুলিশের জালে সম্ভাব্য সেই কিলার ধরা পড়ায় সস্তির নিশ্বাস ফেলছেন প্রশাসন থেকে সাধারণ মানুষ।

পুলিশ সুত্রে জানা গেছে, সিসিটিভি ফুটেজে পাওয়া ছবি মিলিয়ে এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ। প্রাথমিক ভাবে সেই যুবককেই সিরিয়াল কিলার বলে মনে করছেন তদন্তকারী পুলিশ আধিকারিকরা। ধৃত ওই যুবকের নাম কাম্রুজ জামান সরকার(৩৫)। ধৃত মুর্শিদাবাদ জেলার আদি বাসিন্দা। বর্তমানে সে সমুদ্রগড়ের থাকত। 

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, রবিবার দুপুরে কালনা থানার বুলবুলি তলা ফাঁড়ির কাকুরিয়া গ্রামে ডিউটি করার সময় একজন সিভিক ভলেনটিয়ার ওই যুবককে আটক করে। সম্প্রতি বেশ কয়েকটি মহিলা খুনের ঘটনায় তদন্তে নেমে পুলিশ সিসিটিভির ফুটেজে যেমন দেখেছে এই সিরিয়াল কিলার কে, এদিন হুবহু সেই রকম দেখতে লাল বাইক নিয়ে সাদা জামা, কালো প্যান্ট পরে যাচ্ছিল ওই যুবক। সন্দেহ হওয়ায় গ্রামের বাসিন্দাদের সাহায্যে সিভিক ভলেনটিয়ার ওই যুবককে ধরে ফেলেন। যুবকের কাছ থেকে একটি থলি উদ্ধার করেছে পুলিশ। যার মধ্যে একটি লোহার চেন ও একটি লোহার রড ছিল। যা সিসিটিভি ফুটেজের সঙ্গে হুবহু মিলে গিয়েছে। তার পরেই তাকে কালনা থানায় নিয়ে আসা হয়। ধৃতকে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেছে পুলিশ। পুলিশ সুত্রে প্রাথমিক ভাবে জানা গেছে, জেরায় ধৃত যুবক সিরিয়াল কিলিং এর কথা স্বীকার করেছে। এবিষয়ে পূর্ব বর্ধমান জেলা পুলিশ সুপার ভাস্কর মুখোপাধ্যায় বলেন,"এক জনকে আমরা আটক করেছি। তবে একাধিক খুন হয়েছিল। এই যুবকই সেই খুনি কিনা তা সঠিক তদন্ত না করে বলা যাবে না। আমরা সঠিক তদন্তের পরই সেই বিষয়টি নিশ্চিত করব"।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, অপরাধী ফাঁকা বাড়িতে থাকা একা মহিলাদের উপর হামলা চালাচ্ছিল। প্রায় ১০ টি এই ধরনের ঘটনা পুলিশ তদন্ত করছে। গত বৃহস্পতিবার কালনা থানার সিঙ্গেরকোনে এক ছাত্রীকে ঘর থেকে মাথায় আঘাত পাওয়া ও বিবস্ত্র অবস্থায় উদ্ধার করে পুলিশ। এর ঠিক দশ দিন আগে একই ভাবে ফাঁকা বাড়িতে দুই মহিলা খুন হন। তাঁদের মাথায় লোহার রড় জাতীয় কিছুর আঘাত ছিল বলেও পুলিশ জানিয়েছে । তারও আগে এই বছরের জানুয়ারি মাসে কালনাতেই ফাঁকা বাড়িতে গলায় চেন দিয়ে খুন করা হয়েছিল তিন জন মহিলাকে। মৃতদেহের সঙ্গে পাওয়া গিয়েছিল ওই যুবকের কাছ থেকে উদ্ধার হওয়া একই রকম চেন। একই রকম আরও তিনটি খুন হয় কালনা মহকুমার বাইরে মেমারি ও হুগলী থানার বলাগড় এলাকায়। এরও প্রায় ৬ বছর আগে ২০১৩ সালে একই কায়দায় তিন জন মহিলার উপর হামলা হয়। দুজন মারা যান। একজন বেঁচে ছিলেন। তিনি পরে পুলিশকে খুনির বিবরণ জানিয়েছিলেন। বাড়ির ইলেকট্রিকের মিটার দেখার নাম করে ঘরে ঢুকে খুন করছিল অপরাধী। 

পুলিশ প্রতিটি ঘটনায় তদন্তে নেমেও খুনিকে ধরতে সফল হয়নি। পরে সিআইডি এই ঘটনার তদন্ত শুরু করে। যদিও তাতেও খুনি পুলিশের জালে ধরা পরেনি। আতঙ্কে ছিলেন সাধারণ মানুষ। অবশেষে সিরিয়াল কিলার সন্দেহে যুবক ধরা পড়ায় এটিকে পুলিশের বড়সড় সাফল্য বলেই মনে করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে পুলিশ আধিকারিকরা ধফায় দফায় ওই যুবককে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেছে। কি উদ্দেশ্য নিয়ে সেই এই খুন করত তা জানার চেষ্টা করছে পুলিশ।
অবশেষে কালনায় পুলিশের জালে সিরিয়াল কিলার!
  • Blogger Comments
  • Facebook Comments

0 comments:

Post a Comment

Top