728x90 AdSpace

Latest News

Saturday, 26 May 2018

কুরনুল শর্ট ফিল্ম অ্যাওয়ার্ড পেল বর্ধমানের ছেলের ছবি


ফোকাস বেঙ্গল নিউজ ডেস্কঃ দশবছর আগেও বর্ধমান রেলওয়ে স্টেশনে পেপার বিক্রেতাদের স্টলে বসে বিভিন্ন পত্রপত্রিকা থেকে খাতায় লিখে রাখতেন দেশ বিদেশের নানান তথ্য ৷ ছিলো না আজকের মতো আধুনিক মোবাইল কিম্বা ইন্টারনেট ৷ ফিল্মের বিষয়ে তথ্য যোগাড় করাই ছিল নেশা ৷ আর সেই নেশাই বর্তমানে এনে দিয়েছে ৮টি আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব থেকে সন্মান ৷ না, এটা রুপকথার গল্প নয় ৷ বাস্তবেই দাঁতে দাঁত চেপে এক স্বপ্ন পুরনের লড়াই ৷

বর্ধমান শহরের লোকো কলোনির ছেলে কেকে মল্লিক এর কথাই বলছি ৷ চলতি মাসের ১৯ তারিখ তার ও তার সমস্ত ছবির ভিডিও সম্পাদক সৌভিক দাসের নতুন ছবি 'ইনসাইডার' বিশেষ সন্মান পেলো অন্ধ্রপ্রদেশের কুরনুল শর্ট ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে ৷ যদিও বিশেষ কারনে কেকে এই অনুষ্ঠানে হাজির হতে পারেননি। পরিবর্তে তারই সহকারি সৌভিক দাস অনুষ্ঠানে সন্মান গ্রহন করেন ৷
কেকে জানালেন, তাদের ছবি 'ইনসাইডার' বর্তমান সময়ে অমানবিকতার বিরুদ্ধে লড়াই, যা ছোট্ট এক শিশুর নিরব থাকার মধ্যে দিয়ে বোঝানোর চেষ্টা করা হয়েছে। ছবিতে একটিও সংলাপ নেই, নেই হিংসার কোন দৃশ্য ৷ তবু অমানবিকতার থেকে কি ভাবে দূরে থাকা যায় তার সন্ধান দেবে এই ছবি। তিনি জানিয়েছেন, ইতিমধ্যে এই ছবি পৌঁছে গেছে কেরালা অন্তর্জাতিক শর্ট ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে ৷ আগামী ২০-২৪ জুলাই যা অনুষ্ঠিত হতে চলেছে তিরুভানন্তপূরমে ৷

উল্লেখ্য, এই বছরের এপ্রিল মাসের ১২ তারিখ লখনউ আন্তর্জাতিক শিশু চলচ্চিত্র উৎসবে কেকে ও সৌভিক দাস সন্মানিত হয়েছেন তাদের ছবি 'সাইলেন্ট ওনারের ' মধ্যে দিয়ে ৷ এছারাও দিল্লী বায়োস্কোপ ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল, কলকাতা আন্তর্জাতিক শিশু চলচ্চিত্র উৎসবে দু বার , মুম্বাই-এ ইয়েস ফাউন্ডেশন এর সোসাল ফিল্ম কম্পিটিশনে দু বার ও দিল্লীতে ভারত সরকারের স্বচ্ছ ভারত শর্ট ফিল্ম কম্পিটিশনে 'এক্সেলেন্স অ্যাওয়ার্ড' সন্মান পায় ৷


কেকে ফোকাস বেঙ্গলকে দেওয়া একান্ত সাক্ষাতকারে জানালেন, শুরুতে তিনি পাশে পেয়ে ছিলেন কলকাতার বেহালার প্রযোজক দেবরঞ্জন দেকে ৷ যিনি চলচ্চিত্র বিষয়ের নানান বই,মাগাজিন দিয়ে তার আগ্রহকে বাড়িয়ে ছিলেন ৷ বাংলাদেশের এটিএন বাংলার কর্ণধার তপন রায় সেই সময় তাকে নিজের কলকাতার অফিসে দীর্ঘ সময় রেখেছিলেন, আর প্রায়ই নিয়ে যেতেন চলচ্চিত্র বিষয়ক বিভিন্ন আলোচনায় ৷ এছারাও বর্ধমানের বন্ধু ইলিয়াস, নজরুল, আসিফরা বিভিন্ন ভাবে উৎসাহ জুগিয়েছেন ৷ বর্তমানে কেকে একটি দৈনিক সংবাদ পত্রের ক্রীড়া সাংবাদিকের কাজে যুক্ত থাকলেও, ভালোবাসা জড়িয়ে আছে শর্ট ফিল্মের ভাবনাতেই ৷ চলচ্চিত্র নিয়ে পড়া শেষ করেছেন ফেডারেশন অব ফিল্ম সোসাইটি অব ইন্ডিয়া থেকে। রাজ্য তথ্য ও সংস্ক্তি দপ্তর থেকে শেষ করেছেন ফিল্ম স্টাডিস। ক্যামেরা নিয়ে অনেক আগেই পাঠ নিয়েছেন রাজ্য যুবকেন্দ্র থেকে ৷ আর কিছুদিন আগেই আমেরিকার রেনডান্স একাডেমী,লস এঞ্জেলাস থেকে শেষ করেছেন মাষ্টার ইন ফিল্মস ৷

কোন ব্যক্তির বা প্রতিষ্ঠান থেকে কোন আর্থিক সাহায্য ছাড়াই কেকে ও সৌভিক তৈরি করে চলেছেন একটার পর একটা স্বল্প দৈর্ঘের ছবি ৷ কান, বার্লিন, ভেনিস বা অন্য কোন আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব নয়, কেকের লক্ষ্য এবার তেহরান আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব ৷ কারন সে যে ইরানের বিখ্যাত পরিচালক মাজিদ মাজিদি - র বড় ভক্ত - তাই এবার তাকে ছুঁতেই হবে তেহরানের মাটি ।অপেক্ষা সময়ের।
কুরনুল শর্ট ফিল্ম অ্যাওয়ার্ড পেল বর্ধমানের ছেলের ছবি
  • Blogger Comments
  • Facebook Comments

0 comments:

Post a Comment

Top