728x90 AdSpace

Latest News

Thursday, 10 May 2018

বর্ধমানে পানশালার নর্তকীদের বসবাসের জন্য এলাকায় ক্ষোভ, অভিনব উদ্যোগ তৃণমূল প্রার্থীর


ফোকাস বেঙ্গল ডেস্ক,বর্ধমানঃ আসন্ন পঞ্চায়েত নির্বাচনের দোরগোড়ায় এলাকায় চলতে থাকা অসামাজিক যাবতীয় কাজ বন্ধে উদ্যোগী হল খোদ এবারের গ্রাম সংসদের তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী সেখ সেকেন্দর ওরফে সূরজ। বর্ধমান ১নং ব্লকের সরাইটিকর গ্রাম পঞ্চায়েতের কেষ্টপুর গ্রাম সংসদের প্রার্থী সূরজ অবশ্য ইতিমধ্যেই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী হয়েছেন। এই নিয়ে দ্বিতীয়বার। তাই স্বাভাবিকভাবেই পঞ্চায়েত এলাকায় বসবাসকারী মানুষদের পাশে থেকে অন্যায় ,অসামাজিক কাজের প্রতিবাদে মুখর হয়েছেন এলাকার জয়ী প্রার্থী। যদিও এই এলাকায় গ্রাম পঞ্চায়েতের কোনো ভোট নাহলেও পঞ্চায়েত সমিতি এবং জেলা পরিষদের আসনে নির্বাচন হচ্ছে বলে জানিয়েছেন সেখ সুরজ। সেকেন্দর সেখ জানিয়েছেন, মানুষ অনেক আশা নিয়ে সিপিএমকে সরিয়ে তৃণমূলকে ক্ষমতায় নিয়ে এসেছে। এমনকি তিনি প্রার্থী হিসাবে দ্বিতীয়বারের জন্য দাঁড়ানোয় এলাকার মানুষ এগিয়ে এসেছেন। তাই এলাকার সুস্থ পরিবেশ রক্ষা করার দায় তাঁরই। 

বৃহস্পতিবার সেখ সেকেন্দরের নেতৃত্বে তৃণমূল কংগ্রেস কর্মী সহ সাধারণ গ্রামবাসীরাও এগিয়ে এলেন সমাজ সংস্কারের কাজে। খোদ সেকেন্দর সেখ জানিয়েছেন, কেষ্টপুর গ্রামেই প্রায় ৮ থেকে ৯ মাস ধরে বেশ কয়েকটি বহুতল বাড়ি হয়েছে। আর সেই সমস্ত বাড়িতেই এখন প্রতিদিন রাত্রে দেহব্যবসার আসর বসতে শুরু করেছে। বিষয়টি তাঁরা প্রথমে বুঝতে পারেননি। কিন্তু সম্প্রতি কয়েকটি ঘটনায় তাঁদের চোখ খুলে যায়। বর্ধমান শহরের জেলখানা মোড়ের একটি আধুনিক পানশালা ও ডান্স বারের পেশাদার নর্তকীদের এখন ওই সমস্ত বহুতলে ভাড়া দেওয়ার প্রবণতা বেড়েছে। আর তাদের টানেই রাতের অন্ধকারে বিভিন্ন ধরণের লোকজনের আনাগোনা বেড়েছে। সম্প্রতি গ্রামের মহিলারাই বিষয়টি জানতে পেরে তাঁদের জানান। এমনকি স্কুল-কলেজের মেয়েরাও লজ্জা পাচ্ছেন পাড়ার মধ্যে বাস করা ওইসব নতর্কীদের পোশাক আশাক নিয়ে। তাঁরাও অভিযোগ করেছেন। 


সেকেন্দর সেখ জানিয়েছেন, এরপরই তাঁরা গ্রামবাসীদের নিয়ে বৈঠক করেন। সকলের মতামত গ্রহণ করেন। বৃহস্পতিবার সেই সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতেই সরাসরি ওই সমস্ত বহুতলের মালিকদের জানিয়ে দেওয়া হল আর নয়, এলাকার সুস্থ সামাজিক পরিবেশ বজায় রাখতে দুদিনের মধ্যে ওই সমস্ত ভাড়াটেদের উচ্ছেদ করতে হবে। শুধু তাই নয়, এদিন গ্রামবাসীরা গ্রামেরই একটি চা-চপ মুড়ির দোকানেও হানা দেন। সন্ধ্যে হলেই সেখানে আড্ডা বসে। সেখান থেকে মহিলাদের কটুক্তি করা হয়। ভয়ে রাস্তা দিয়ে চলাচল করতে পারছেন না মহিলারা। এদিন সন্ধ্যায় গ্রামবাসীরা সেই দোকানদারকেও আড্ডার ঠেক তুলে দেবার নির্দেশ দিয়েছেন।


গ্রামের অভ্যন্তরে একটি বাড়িতে বসে জুয়ার ঠেক। কদিন আগেই জুয়াড়িদের নিজেদের মধ্যে মারপিট হয়। তার জেরে এখনও একজন বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি। এদিন সেই ঠেকও বন্ধ করার ফতোয়া দেওয়া হয় জুয়ার ঠেকের মালিককে। খেমাদাস রাজবংশী প্রায় ৬০ বছরের বৃদ্ধা। দীর্ঘ প্রায় কয়েক দশক ধরে মদ বেচে আসছেন। এদিন সেখানেও হানা দিয়ে তাঁকে জানিয়ে দেওয়া হয় মদ বেচা সম্পূর্ণ বন্ধ করতে হবে। বৃদ্ধার আবদার, তাঁকে রোজগারের পথ দেখানো হলে তিনি বন্ধ করে দেবেন মদ বেচা। বস্তুত, গোটা জেলার মধ্যে নতুন ধরণের এই সমাজ সংস্কারের প্রচেষ্টার খবর ছড়িয়ে পড়তেই চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।

উল্লেখ্য, পাশেই গুমটি ফটকে গত দু দিনে ২ যুবকের মদ খেয়ে মৃত্যু তাঁদের টনক নড়িয়ে দিয়েছে। সুরজ জানিয়েছেন, আগামী শনিবারের মধ্যে এই সমস্ত অসামাজিক কার্যকলাপ বন্ধ করা না হলে গ্রামবাসীরাই ওই সমস্ত বহুতল মালিক থেকে জুয়া ও মদের ঠেকের মালিকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে। 
অন্যদিকে, এদিন এই বহুতলের মালিক সেখ মহিম, সামসুল লায়েক প্রমুখরা স্বীকার করেছেন, তাঁরা অর্থের জন্যই এই ভাড়া দিয়েছেন। কিন্তু যেহেতু গ্রামবাসীরা আপত্তি তুলেছেন তাই গ্রামবাসীদের চাহিদা মত তাঁরা ভাড়া তুলে দেবেন।
বর্ধমানে পানশালার নর্তকীদের বসবাসের জন্য এলাকায় ক্ষোভ, অভিনব উদ্যোগ তৃণমূল প্রার্থীর
  • Blogger Comments
  • Facebook Comments

0 comments:

Post a Comment

Top