728x90 AdSpace

Latest News

Saturday, 2 September 2017

কালনার ধাত্রীগ্রামে তাঁতের হাটের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করলেন মন্ত্রী।

পল্লব ঘোষ,কালনা:কালনা ধাত্রীগ্রামে শনিবার ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন হলো আধুনিক তাঁতের হাটের। ১.৫২ একর জমির উপর ৩ কোটি ৮৩ লক্ষ টাকা ব্যয়ে এই প্রকল্পের উদ্বোধন করেন ক্ষুদ্র,ছোট, মাঝারি উদ্যোগ, বস্ত্র ও প্রানিসম্পদ বিকাশ দপ্তরের মন্ত্রী তথা তন্তুজের চেয়ারম্যান স্বপন দেবনাথ।মন্ত্রী জানিয়েছেন, এই প্রকল্পের কাজ সম্পূর্ণ হলে শাড়ি, সুতো, রঙ, শাড়ী বেচা-কেনা, অফিস, তন্তুজের শোরুম, সভাকক্ষ প্রভৃতি একই ছাদের তলায় তাঁত শিল্পীরা পেয়ে যাবেন। এছাড়াও এই চত্বরেই তৈরী করা হবে একটি ভেষজ বাগান। এই বাগান থেকে উৎপাদিত ভেষজ ফল, ফুল সুতো রঙের ক্ষেত্রে কাজে লাগাতে পারবেন তাঁতিরা।
এদিনের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন তন্তুজের এমডি রবীন্দ্রনাথ রায়, হ্যাণ্ডলুম ও টেক্সটাইল দপ্তরের জয়েন্ট ডাইরেক্টর অসিতবরণ মাইতি, জেলা সভাধিপতি দেবু টুডু, মহকুমা শাসক নীতিন সিংহানিয়া, কালনার বিধায়ক বিশ্বজিৎ কুণ্ডু প্রমুখ।  

















কালনা মহকুমার কালনা, ধাত্রীগ্রাম, পূর্বস্থলী, সমুদ্রগড় প্রভৃতি এলাকার বহু মানুষ তাঁত শিল্পের সঙ্গে যুক্ত। বিশেষ করে ধাত্রীগ্রাম ও সমুদ্রগড় এলাকার অধিকাংশ মানুষ তাঁত শিল্পের সঙ্গে যুক্ত। বাংলার কুটিরশিল্পের মধ্যে বৃহত্তর শিল্প তাঁতশিল্প। একসময় ধংস হতে বসা বাংলার তাঁতশিল্প বাঁচাতে মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁতি সাথী ও তাঁতশ্রী প্রকল্প ঘোষণা করেছেন। তাঁত বিহীন ৬৮ হাজার তাঁতির হাতে তাঁত ও তাঁতের সরঞ্জাম তুলে দেওয়া হয়েছে। তাঁতিদের উন্নত করার লক্ষ্যে প্রশিক্ষন দিয়ে বাংলা জুড়ে হাজার হাজার ক্লাসটারে কাজ চলছে। একসময় লোকশানে চলা তন্তুজ আজ লাভের মুখ দেখেছে।
স্বপনবাবু বলেন ২০১৬-১৭ বর্ষে তন্তুজ ৬কোটি টাকার উপর লাভ করেছে। এক সময় তন্তুজের বার্ষিক লেনদেন ছিল ৫০ কোটি টাকা। আজ তন্তুজের বার্ষিক লেনদেন ১৫০ কোটি টাকা ছাড়িয়ে গেছে। আজ বাংলার তাঁতের শাড়ি বিশ্বের বাজারে চাহিদা বেড়েছে। তাঁতিদের কর্মসংস্থান বৃদ্ধি পাচ্ছে। তিনি আরও জানান বাংলার তন্তুজের সঙ্গে বাংলার তাঁতের শাড়ি দ্রুত উত্থাণ গবেষণার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। এই নিয়ে আরবের আবুধাবি বিশ্ববিদ্যালয়ে গবেষণা শুরু হয়েছে। এই বিষয়ে তন্তুজের এমডি আরবের বিশ্ববিদ্যালয়ের আমন্ত্রণে অংশ গ্রহন করেছেন। এদিনের প্রকল্পের বিষয়ে বলেন ২০১৮ সালের মধ্যে প্রকল্পের কাজ শেষ হবে। তবে, প্রকল্প নির্মাণের ক্ষেত্রে ঠিকাদারের উপর কোন প্রভাব খাটানো বরদাস্থ করা হবে না বলে সাফ জানিয়ে দেন।
দেবু টুডু বলেন বাংলার ধংস হতে বসা তাঁতশিল্পের উত্থানের সঙ্গে সঙ্গে তাঁতিপাড়া গুলির রাস্তা, পানীয় জল, আলো ব্যপক উন্নয়ন হয়েছে। তাঁতিদের আর্থিক স্বনির্ভরতার পাশাপাশি সামাজিক উন্নয়ন ঘটেছে।
কালনার ধাত্রীগ্রামে তাঁতের হাটের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করলেন মন্ত্রী।
  • Title : কালনার ধাত্রীগ্রামে তাঁতের হাটের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করলেন মন্ত্রী।
  • Posted by :
  • Date : September 02, 2017
  • Labels :
  • Blogger Comments
  • Facebook Comments

0 comments:

Post a Comment

Top