728x90 AdSpace

Latest News

Wednesday, 13 September 2017

কালনা হাসপাতালে ভর্তি থাকা সেই মানসিক ভারসাম্যহীন বৃদ্ধ মারা গেলেন।

পল্লব ঘোষ,কালনা : এটাই কি ভবিতব্য!  টানা ২৮ দিন পরিচয়হীন অবস্থায় কালনা হাসপাতালে ভর্তি থাকার পর মৃত্যুর কোলে ঢোলে পড়লেন সেই বৃদ্ধ।  একদিকে যেমন ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন রুগীরা মানসিক ভারসাম্যহীন সেই বৃদ্ধের মৃত্যুতে আশঙ্কার পরিবেশ থেকে মুক্তি পেল পাশাপাশি এইভাবে নাম গোত্রহীন অবস্থায় একজন মানুষের চলে যাওয়াকেও মেনে নিতে পারছেন না রুগী ও তাদের পরিজনেরা। 
উল্লেখ্য,গত ১৫ ই আগস্ট কালনা শহরে কোনো এক জায়গা থেকে কেউ বা করা এই অসুস্থ,মানসিক ভারসাম্যহীন এক বৃদ্ধকে কালনা হাসপাতালে রেখে দিয়ে যায়। তারপর থেকে  হাসপাতালের সক্রামক বিভাগেই ভর্তি ছিলেন সেই বৃদ্ধ। হাজার চেষ্টা করেও রুগী বা তাদের পরিজনেরা বা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ উদ্ধার করতে পারেনি বৃদ্ধের আসল নাম কিংবা বাড়ির ঠিকানা। জিজ্ঞাসা করলে ফ্যালফ্যাল করে তাকিয়েই হাসপাতালের ওয়ার্ডটাকেই নিজের বাড়ি বলে দিচ্ছিলেন বৃদ্ধ। আর নাম বলছিলেন তপেন্দু মুখোপাধ্যায় । ভর্তি করে দেওয়ার পর থেকেই কিচ্ছুটা মুখে তুলছিলেন না তপেন্দু বাবু। এমনকি লজ্জা নিবারণের জন্য হাসপাতালের থেকে দেওয়া শরীর ঢাকার কাপড়ও মানসিক ভারসাম্যহীন তপেন্দু বাবু বারবার সরিয়ে দিচ্ছিলেন। ওয়ার্ডে ভর্তি থাকা অন্য রোগীদের অস্বস্তি ও আশঙ্কার কারন হয়ে উঠেছিল তপেন্দু বাবুর অস্বাভাবিক আচরণ। 
টানা ২৮ দিন পর সেই সবকিছুর অবসান হল। এখন ভর্তি থাকা রুগীদের তাই মনে হচ্ছে মানুষের বেঁচে থাকাটাই আশ্চর্যের। প্রায় সত্তরোর্ধ একজন বৃদ্ধ যেভাবে জীবনের শেষপ্রান্তে এসে নামহীন, ঠিকানাহীন, অভুক্ত  অবস্থায়  চলে গেলেন  তা মেনে নেওয়া যায় না। 
                                                                                                                ছবি - সুরজ প্রসাদ 










কালনা হাসপাতালে ভর্তি থাকা সেই মানসিক ভারসাম্যহীন বৃদ্ধ মারা গেলেন।
  • Blogger Comments
  • Facebook Comments

0 comments:

Post a Comment

Top